বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৯১ সাল থেকে রহনপুর স্টেশনটি শুল্ক স্টেশন হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এ বন্দর দিয়ে পাথর, চাল, গম, ভুট্টাসহ বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য আমদানি–রপ্তানি করা হয়। এই পথ দিয়ে ভুটান ও নেপালে রাসায়নিক সার যায়। ফলে শুল্কস্টেশনটি পূর্ণাঙ্গ রেলবন্দর হওয়ার দাবি রাখে। এ দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

নাজমুল হুদা খান প্রথম আলোকে বলেন, পথসভা থেকে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ১ মার্চ রহনপুর পৌর এলাকায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে। আজকের এ কর্মসূচিতে দোকানদারসহ ব্যবসায়ীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছেন। তবে মানুষের ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে ওষুধ ও খাবারের দোকান খোলা ছিল।

প্রসঙ্গত, বেশ কিছুদিন ধরেই রহনপুরে রেলবন্দরের পূর্ণাঙ্গ অবকাঠামো নির্মাণের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে আসছে রেলবন্দর বাস্তবায়ন পরিষদ। এর আগে গত বৃহস্পতিবার রেলস্টেশন চত্বর থেকে পৌর এলাকার বিভিন্ন মহল্লা পর্যন্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন