বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সমাবেশে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হাফিজুর রহমান মোল্লা সভাপতিত্ব করেন। কেন্দ্রীয় বিএনপির অর্থনীতিবিষয়ক সম্পাদক খালেদ হোসেনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির স্থানীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া।

রুমিন ফারহানা বলেন, বেগম জিয়া নিজের পায়ে হেঁটে কারাগারে গেছেন। এখন নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারেন না। এর দায় সরকারকে নিতে হবে। খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা কেন করা হচ্ছে না? সরকারকে এর জবাব দিতে হবে। সরকার মনে করে, খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে গেলে, সরকারের অনেক কিছু বের হয়ে আসবে। সরকারের অনেক ভয়। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে ভয়। তারেক রহমানকে ভয়। অনেককে ভয় সরকারের। এই কারণে তাঁকে (খালেদা জিয়া) ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ঢেলে দিচ্ছে সরকার।

রুমিন ফারহানা আরও বলেন, ‘আমার ভাইয়েরা, আপনারা জেগে উঠেছেন, আমি দেখতে পাই। যত দূর চোখ যায়, শুধু বিএনপির নেতা–কর্মী, বিএনপির নেতা–কর্মী। তাঁরা পুলিশকে ভয় পান না, প্রশাসনকেও ভয় পান না। আমরা যাঁরা ঢাকা থেকে এসেছি, রাস্তায় রাস্তায় আমাদের গাড়ি থামিয়েছে পুলিশ। গতকাল আমাদের নেতা–কর্মীদের তারা গ্রেপ্তার করেছে। কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে তারা তল্লাশি চালিয়েছে।

কিন্তু তারা আমাদের কোনোভাবেই দমাতে পারেনি। আমি শেখ হাসিনাকে বলব, জনগণের ম্যান্ডেট ছাড়া তো ক্ষমতায় আছেন। এসে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটি দেখে যান। আমার কোটি কোটি ভাইয়ের সমর্থন দেখে যান। ব্রাহ্মণবাড়িয়া তো সেই মাটি, যেখানে মোরগও লড়াই করে বেঁচে থাকে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সেই মাটি, যেখানে অলি আহাদ ১৯৫২ সালে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করেছিলেন। ভাষা আন্দোলনে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করেছিল। সেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটিতে ১৪৪ ধারা কাজ করে না। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষকে ১৪৪ ধারা দিয়ে আটকে রাখতে পারবেন না।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন