বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পরিবারের সদস্যরা জানান, গত বছর রুহুল আমিন হঠাৎ বুকের মধ্যে ব্যথা অনুভব হলে স্বজনেরা তাঁকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কিডনিজনিত সমস্যা ধরা পড়ে। গত সাত মাস ঢাকার কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন রুহুল। চিকিৎসকেরা তাঁর দুটি কিডনি বিকল হয়ে যাওয়ার কথা জানিয়ে যত দ্রুত সম্ভব কিডনি প্রতিস্থাপনের কথা জানান। এমন দুঃসংবাদে হতাশায় পড়ে পরিবারটি। খোঁজা শুরু হয় কিডনিদাতার। সেই সময় আপন ছোট ভাই সোয়েব ভাইকে বাঁচাতে পাশে দাঁড়ান। স্বেচ্ছায় কিডনি দেবেন জানান সোয়েব। পরে গত বুধবার পরিবারের সবার সম্মতিতে ঢাকার কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতালে তাঁদের অস্ত্রোপচার করা হয়। বর্তমানে তাঁরা দুই ভাই সুস্থ।

সোয়েবের ভগ্নিপতি কাজি আহমদ বলেন, ‘দ্রুত কিডনি প্রতিস্থাপন নিয়ে আমরা দুশ্চিন্তায় ছিলাম। ছোট ভাই কিডনি দান করে বড় ভাইকে বাঁচিয়ে দিল।’

কিডনি প্রতিস্থাপনের সত্যতা নিশ্চিত করে সোয়েবের ভগ্নিপতি কাজি আহমদ বলেন, ‘অপারেশনের পর এখন তাঁরা দুই ভাই সুস্থ। দ্রুত কিডনি প্রতিস্থাপন নিয়ে আমরা দুশ্চিন্তায় ছিলাম। ছোট ভাই কিডনি দান করে বড় ভাইকে বাঁচিয়ে দিল।’

রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘ভাইয়ের প্রতি ভাইয়ের ভালোবাসার এমন নিদর্শন সত্যিই প্রশংসনীয়। সমাজের নানা অসংগতির মধ্যে পারিবারিক ভালোবাসার এ ধরনের দৃষ্টান্ত আশা জাগায়। সুস্থ হয়ে এলে আমরা তাঁদের সংবর্ধনা দেব।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন