বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথমবারের মতো এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা হচ্ছে। অঞ্চলভিত্তিক এই ভর্তি পরীক্ষা ব্যবস্থায় আজ বেলা ১১টায় শুরু হয় ক ইউনিটের পরীক্ষা। প্রথম দিন এই ইউনিটে অংশ নিচ্ছেন ১৪ হাজার ৩৪৬ জন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী। এবার অঞ্চলভিত্তিক পরীক্ষা হওয়াতে ভোগান্তি অনেক কমেছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা।

ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে লিজা আক্তার এসেছেন রাজশাহীর পুঠিয়া থেকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ একাডেমিক ভবনে প্রবেশের সময় তাঁর হাতে জীবাণুনাশক দিয়ে দেওয়া হয়। এর আগে তাঁর শরীরের তাপমাত্রাও পরীক্ষা করেন সেখানকার দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।
এদিকে বগুড়ার সান্তাহার থেকে ছেলেকে নিয়ে এসেছেন আরিফুজ্জামান। তিনি বলেন, ঢাকায় যাওয়া-আসায় অনেক ঝামেলা ছিল। কিন্তু এখন ঝামেলামুক্ত হয়ে ছেলে পরীক্ষা দিতে পারছে।

শহীদুল্লাহ একাডেমিক ভবনের সামনে অপেক্ষারত আরও কয়েকজন অভিভাবক ঢাবির অঞ্চলভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষায় স্বস্তি প্রকাশ করেন। এ সময় তাঁরা বুয়েটসহ অন্য বিশ্ববিদ্যায়গুলোকে অঞ্চলভিত্তিক পরীক্ষা নেওয়ার জন্য আহ্বান জানান।

তবে কোনো কোনো অভিভাবক এভাবে পরীক্ষা নেওয়াতে স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্নও তুলেছেন। তাঁরা বলছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গতবার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছিল। এবার প্রশ্নপত্র সাত বিভাগে যাচ্ছে। এ কারণে কিছুটা আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

তবে এই আশঙ্কার কথা উড়িয়ে দিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, করোনার কারণে ঢাবি কর্তৃপক্ষ প্রতিটি বিভাগে পরীক্ষার আয়োজন করেছে। এখানেও খুব সুন্দর পরিবেশে পরীক্ষা হচ্ছে। স্বচ্ছতার সঙ্গে যে পরীক্ষা নেওয়া যায়, তাঁরা সেটি এবারও প্রমাণ করবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন