বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলার নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, কাল রোববার চতুর্থ ধাপে উপজেলার ১০টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবারও দলীয় প্রতীকে ইউপি নির্বাচন হচ্ছে। এ উপজেলায় ১ লাখ ৩ হাজার ৩৬০ জন পুরুষ ভোটার এবং ১ লাখ ১ হাজার ৫৮০ জন নারী ভোটার আছেন। ১০টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৫১ জন, সংরক্ষিত আসনে সদস্যপদে ১৪১ জন এবং সাধারণ আসনের সদস্যপদে ৩৩৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ১০টি ইউনিয়নের ৯৩টি ভোটকেন্দ্রে এ ভোট হবে।

এদিকে প্রার্থীরা প্রতীক বরাদ্দের পর নিজ প্রতীকে ভোট নিতে অবলম্বন করেছেন নানা উপায়। ভোটারদের মন পেতে চা-বিড়ি, বিরিয়ানি-নাশতা বিতরণ করেছেন। কর্মী-সমর্থকেরা সব সময় বাজার ও মোড়ের দোকানে ছিলেন অ্যাপায়নে। গতকাল শুক্রবার রাত আটটার পর থেকে নির্বাচনী প্রচার শেষ হয়েছে। ভোটারদের সঙ্গে প্রার্থীরা যোগাযোগ করছেন এখন মুঠোফোনে। শেষ পর্যায়ে তাঁরা প্রাণপণ চেষ্টা করছেন নিজ প্রতীকে ভোট টানার।

আজ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রেগুলোতে পুলিশ, আনসার সদস্য, প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসাররা ভোটের সরঞ্জামদি নিয়ে কেন্দ্রের দিকে ছুটে যাচ্ছেন। ভোট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টহলও জোরদার করা হয়েছে। প্রার্থীদের মধ্যে অস্থিরতা থাকলেও ভোটের দিন ঘনিয়ে আসায় ভোটারদের মনে বইছে আনন্দের হাওয়া।

কথা হয় দামোদরপুর ইউনিয়নের ভোটার হাফিজার রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘কাইল (রোববার) ভোট হইবে। সকালে যায়া কেন্দ্রোত নিজের ভোটটা দিইম। বাড়ি আসি শান্তি করি একটা ঘুম দেইম। কয় দিন থাকি প্রার্থীর ঘরে জ্বালাতে দিনে রাইতে ঘুমবার পারি নাই। ভোটের পরও কয় দিন অশান্তি চলবে। কায় কাক ভোট দিছে, নাই দেয়—সেইগলা নিয়ে এলাকাত ঝামেলা চলবে।’

কালুপাড়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফুল সরকার ওরফে সংগ্রাম বলেন, ‘এলাকায় আমার ব্যাপক জনপ্রিয়তা আছে। ভোটারদের ভালোবাসায় প্রার্থী হয়েছি। কেন্দ্র দখল, অনিয়ম, ভোট চুরি না হলে আমি জয়ী হব ইনশা আল্লাহ।’ ওই ইউপির আরেক স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শহিদুল হক বলেন, ‘নির্বাচন সুষ্ঠু হলে আমার জয় কেউ ঠেকাতে পারবে না।’

দামোদরপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ আবুবক্কর সিদ্দিক বলেন, ‘ভোটাররা উন্মুখ হয়ে আছে আমাকে ভোট দেওয়ার জন্য। ভোট নিরপক্ষ হলে আমার জয় হবেই ইনশা আল্লাহ।’

লোহানীপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডলু শাহ বলেন, ‘ভাই, ভোটাররা এখন প্রতীকের পাশাপাশি ব্যক্তিগত চরিত্রও দেখছে। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত হয়ে নৌকা মার্কা পেয়েছি। সরকারের সহযোগিতায় এলাকায় অনেক উন্নয়ন করেছি। বিপদে আপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। আশা করি, সুষ্ঠুভাবে ভোটাররা ভোট প্রদানের মাধ্যমে আমাকে জয়ী করবে।’

বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান বলেন, ‘ভোট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে গ্রহণের জন্য এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। কেউ কোনো সহিংসতার চেষ্টা করলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তা কঠোর হস্তে দমন করবে। আমরা ভোটারদের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে সদা প্রস্তুত।’

বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আজিজার রহমান বসুনীয়া বলেন, ‘আগামীকাল শান্তিপূর্ণভাবে উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের ৯৩টি ভোটকেন্দ্রে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রেগুলোতে প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার ও নির্বাচনী সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে। আশা করছি, কোনো ঝামেলা ছাড়াই উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন