বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত রাইসুল ইসলাম (২২) বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বগুড়ার কাহালু উপজেলার ভারসন গ্রামে শামসু রহমানের ছেলে। আহত জাকির হোসেন (২১), নাঈম ইসলাম (২০) ও মাজহারুল ইসলাম (২১) চীনের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। তাঁরা গোপালগঞ্জে বেড়াতে এসেছিলেন। আহত ভ্যানচালক লিকু শেখের বাড়ি সদর উপজেলার চরপাথালিয়া এলাকায়। হতাহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মনজুরুল ইসলাম।

default-image

আহত জাকির হোসেন বলেন, ‘আমরা তিনজন চীনের নর্থ চায়না ইলেকট্রিক পাওয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র। রাইসুল ও নাঈমের বাড়ি একই এলাকায়। সেই সূত্রে আমরা এখানে বেড়াতে আসি। রাইসুল চরপাথালিয়ায় একটি মেসে থাকে। আমরা চারজন একটি ভ্যানে চড়ে ঘোনাপাড়ায় যাচ্ছিলাম। দুপুর ১২টার দিকে পাথালিয়া এলাকার টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের (টিটিসি) পৌঁছানোর পর ভ্যানের চাকা খুলে যায়। আমরা সড়কের ওপর ছিটকে পড়ি। এ সময় পেছন দিক থেকে একটি বাস রাইসুলকে চাপা দেয়। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যাই আমরা।’

ওই ঘটনার পর স্থানী লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। তখন রাইসুল ইসলামকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

গোপালগঞ্জ সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মারিদুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। বাসটি জব্দ করা হয়েছে। তবে বাসের চালক ও তাঁর সহকারী পালিয়ে গেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন