বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, গতকাল শুক্রবার রাতে তাঁর দলের কর্মী-সমর্থকসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর আগে ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। পুলিশ বিএনপির নেতা-কর্মীদের হেফাজতের মামলায় ও মাদক মামলায় গ্রেপ্তার করছে। এভাবে সুষ্ঠু ভোটের পরিবেশ নষ্ট হলে প্রধানমন্ত্রীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হবে। নির্বাচন কমিশন, ডিসি-এসপিদের নিরপেক্ষ থেকে সুষ্ঠু ভোটের আহ্বান জানান তিনি।

তৈমুর আলম খন্দকার অভিযোগ করেন, পুলিশ তাঁর পক্ষের লোকজনের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন করছে। এভাবে গ্রেপ্তার ও হয়রানি করা হলে কীভাবে সুষ্ঠু ভোট হবে, সে প্রশ্ন তোলেন তিনি। তিনি বলেন, ‘যত অত্যাচার-নির্যাতন করা হবে, ততই ভোটাররা একতাবদ্ধ হবে। নির্বাচনে আমরা বিজয়ী হব, অবশ্যই আমরা মাঠ ছাড়ব না। নির্বাচনের মাঠে যা-ই হোক না কেন, মাঠে থাকব। গ্রেপ্তার হলে হব। মরে গেলেও নির্বাচন চালিয়ে যাব।’

স্বতন্ত্র এই মেয়র প্রার্থী বলেন, ‘আমি ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছি না। পুলিশের আচরণকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছি। প্রশাসনের আচরণকে ঝুঁকিপূর্ণ ও নির্বাচন কমিশনের আচরণকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছি।’ তিনি ভোটকেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন এবং নির্বাচন কমিশন ও ডিসি-এসপিদের নিরপেক্ষ থেকে সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণের দাবি জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন