default-image

ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী বীথি শর্মা বণিক। মঙ্গলবার বীথি জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করে। দপ্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে দিক্‌নির্দেশনাও দেয়। তবে তার এই দায়িত্ব ছিল এক ঘণ্টার জন্য প্রতীকী। একটি বেসরকারি সংস্থার ‘গার্লস টেকওভার’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে নারীর নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠায় সে এই প্রতীকী দায়িত্ব পালন করে।

মঙ্গলবার সকালে মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের ঝালকাঠির উপপরিচালক মো. আলতাফ হোসেনের কাছ থেকে প্রতীকীভাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন বীথি। সে ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্কফোর্সের (এনসিটিএফ) একজন গবেষক। আন্তর্জাতিক সংস্থা প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের ‘গার্লস টেকওভার’ কর্মসূচির আওতায় এ দায়িত্ব পালনের সময় তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। দায়িত্ব গ্রহণ করেই বীথি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে বৈঠক করে। এ সময় নারীর সার্বিক উন্নয়নের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোকপাত করা হয়। বৈঠকে উপপরিচালক মো. আলতাফ হোসেন তাঁর কর্যালয়ের বিভিন্ন কার্যক্রমসহ নারীসমাজের বিভিন্ন বঞ্চনার কথা তুলে ধরেন।

বৈঠকে বীথি শর্মা বাল্যবিবাহ রোধ, কন্যাশিশুবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি এবং নারীর প্রতি সব ধরনের সহিংসতা বন্ধ ও নারীর ক্ষমতায়নবিষয়ক সুপারিশমালা পেশ করে তা বাস্তবায়নে সবার সহযোগিতা কামনা করেন। শিশু সংগঠক হেমায়েত উদ্দিন ও প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল প্রতিনিধি উম্মে আয়মান জ্যোতিও আলোচনায় অংশ নেন।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, গার্লস টেকওভার কর্মসূচির মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে একজন কিশোরী, কন্যাশিশু অথবা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা। যাতে তার আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং নিজের স্বপ্নপূরণে সে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0