বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দুই মেলার আয়োজকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ১০০ বছরের বেশি সময় ধরে মেলা দুটি আয়োজিত হয়ে আসছে। যেখানে মূল আকর্ষণ ঘোড়দৌড়। তবে ঘোড়দৌড়ের আগে ও পরে এক সপ্তাহ করে মেলা চলে। আগামীকাল বুধবার দুই মেলাতেই ঘোড়দৌড় আয়োজনের কথা রয়েছে।

আজ মঙ্গলবার বড়রিয়া গ্রামের মেলায় গিয়ে দেখা যায়, ইতিমধ্যে সেখানে কয়েক শ দোকানে শিশুদের খেলনা, কাপড়চোপড়, মিষ্টি থেকে শুরু করে আসবাব বেচাকেনা চলছে। মেলায় মানুষের সমাগমও চোখে পড়ার মতো।

জানতে চাইলে বড়রিয়া মেলার আয়োজক কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান সরদার প্রথম আলোকে বলেন, এই মেলায় ২০০ থেকে ৩০০ দোকান বসে। আর এই মেলা ঘিরে পুরো উপজেলায় উৎসবের আমেজ তৈরি হয়। কিন্তু করোনার কারণে এবার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক দিনের জন্য মেলা আয়োজনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

default-image

সদর উপজেলার বাহারবাগ মেলা চত্বরে চার থেকে পাঁচ দিন আগে থেকেই দোকান বসিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। আয়োজক কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘শত বছর ধরে এই মেলা হয়ে আসছে। এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে দূরদূরান্ত থেকে মেলা দেখার জন্য আত্মীয়স্বজনেরা এসেছেন। এখানে কাউকে ডেকে আনতে হয় না। ব্যবসায়ীরা নিজে থেকে এসেই দোকান বসান। রাতে জারিগানের আয়োজন থাকে। কিন্তু এবার অনুমতি মেলেনি। এখন আমরা কাউকে তাড়িয়েও দিতে পারছি না, আবার ইচ্ছামতো উৎসবও করতে পারছি না।’

জানতে চাইলে মাগুরার জেলা প্রশাসক আশরাফুল আলম মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, মেলা দুটি মাগুরার ঐতিহ্য। তবে মেলা আয়োজনের অনুমতি দেওয়া হয়নি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। কিন্তু সরকারিভাবে বিধিনিষেধ আরোপ করলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুমতি দেওয়ার সুযোগ নেই। জনস্বাস্থ্যের বিষয়ে জেলা প্রশাসন কোনো ঝুঁকি নিতে পারবে না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন