বিজ্ঞাপন

আটককৃতরা সবাই মিয়ানমারে বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগ শেষে অবৈধভাবে টেকনাফের রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরে অবস্থানরত পরিবারের কাছে আসার চেষ্টা করেন বলে এপিবিএনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। এ জন্য তাঁরা দালালদের সহায়তা নেন।

তারিকুল ইসলাম বলেন, আটককৃতদের ব্যাপারে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের (আরআরআরসি) সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

২০১৭ সালের আগস্ট মাসে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের সহিংসতা ঘটনায় সে দেশের সেনাবাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হন শত শত রোহিঙ্গা। কারাভোগ শেষে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করা রোহিঙ্গাদের গতিবিধির ওপর গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তারিকুল ইসলাম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন