মীমাংসায় বেঁচে যান দালাল

২০১৯ সালের ২১ সেপ্টেম্বর ১০ লাখ টাকা চুক্তিতে ইতালির উদ্দেশে লিবিয়া যান রাজৈরের মজুমদারকান্দি এলাকার তরুণ আশরাফুল ঘরামী। যাওয়ার পর থেকে পরিবারের সঙ্গে আশরাফুলের আর কোনো কথা হয়নি। এ ঘটনায় মজুমদারকান্দি এলাকার খাদিজা বেগম ও তাঁর স্বামী আজিজুল মজুমদারসহ তিনজনকে আসামি করে গত ৩ জানুয়ারি মানব পাচার আইনে মামলা করেন আশরাফুলের ভগ্নিপতি উজ্জ্বল শেখ। তবে মাস না ঘুরতেই দালাল চক্র ভুক্তভোগী পরিবারের সঙ্গে মীমাংসা করে নিয়েছে।

মামলার বাদী উজ্জ্বল শেখ প্রথম আলোকে বলেন, ‘মামলা করার পর বিষয়টি মীমাংসা হয়ে গেছে।’ যদিও তাঁর শ্যালকের কোনো সন্ধান এখনো পাওয়া যায়নি। সর্বশেষ গত ২৫ জানুয়ারি লিবিয়া থেকে অবৈধ পথে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইতালি যাওয়ার পথে ঠান্ডায় মারা যান মাদারীপুরের চার তরুণ। তবে এ ঘটনায় দালালপক্ষ তাঁদের পরিবারের সঙ্গে মীমাংসা করায় আর মামলা হয়নি। এ প্রসঙ্গে মৃত এক তরুণের স্বজন প্রথম আলোকে বলেন, ‘কিছু ক্ষতিপূরণ দালাল দিয়েছে। তাই আর আমরা মামলায় যাইনি।’

মামলায় ৪৪ জনের নাম

রাজৈরের রবি দাড়িয়া ও তাঁর ভাই রাজা দাড়িয়া। ইতালি নেওয়ার কথা বলে গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে তিন ধাপে ৮৫ জন তরুণকে লিবিয়ায় নেন তাঁরা। এর মধ্যে সেলিম মোল্লা নামে এক তরুণ লিবিয়ায় মারা যান। বাকি ৮৪ জনের কোনো হদিস নেই।

এই ঘটনায় নিখোঁজ তরুণ এলাহি মোল্লার বাবা মেরজন মোল্লা গত ১ ফেব্রুয়ারি আদালতে মামলা করেন। মামলায় রাজৈরের খালিয়া ইউনিয়নের নূরপুর এলাকার রবি দাড়িয়া, রাজা দাড়িয়া, রবি দাড়িয়ার লিবিয়াপ্রবাসী ছেলে সজীব দাড়িয়া ও মেয়ে মুন্নি বেগম, সজীবের মা সুমি বেগমকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার পর থেকেই পুরো পরিবার লাপাত্তা।

জেলার চারটি থানা ও আদালতে মানব পাচার আইনে হওয়া মামলার এজাহার থেকে রবি দাড়িয়াসহ তাঁর পরিবারের ৫ জন ছাড়া আরও ৩৯ জনের নাম পাওয়া গেছে।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) চাইলাউ মারমা প্রথম আলোকে বলেন, ‘মানব পাচারের বিষয়ে আমরা কোনো ছাড় দিচ্ছি না। অভিযোগ পাওয়ামাত্রই মামলা নেওয়া হচ্ছে। অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তারও করা হচ্ছে। তবে সমস্যা হচ্ছে, আদালতে জামিনের সময় আসামির বিপক্ষে বাদী শক্ত অবস্থান নেয় না। তাই দালালেরা দ্রুত জামিন পেয়ে যান। পরে দালালেরা বাদীপক্ষের সঙ্গে আপস করে নেন।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন