আদালতে মারুফুল ইসলামের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির বরাত দিয়ে সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই কর্মকর্তা মো. আকরামুল হোসেন বলেন, পারভেজ ইসলাম সোনাতলা উপজেলায় একটি মুঠোফোন কোম্পানির সিম বিক্রির এজেন্ট ছিলেন। ওই কোম্পানিতে সিম বিক্রয় প্রতিনিধির কাজ করতেন ঠাকুরপাড়া এলাকার মাসুদ রানা। তাঁরা একসঙ্গে বিভিন্ন বাজারে সিম বিক্রি করতেন। সিম বিক্রির টাকা লেনদেন নিয়ে পারভেজ ও মাসুদের মধ্যে দ্বন্দ্ব তৈরি হয়। এই বিরোধ মিটমাটের জন্য মাসুদ রানার পক্ষ নিয়ে ২০২০ সালের ১১ এপ্রিল দুপুরে পারভেজ ইসলামকে সোনাতলা উপজেলার করমজা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ডেকে আনেন গ্রেপ্তার মারুফুল ইসলাম। মারুফুলের সঙ্গে তাঁর বন্ধু রিপন হাসান সেখানে যান। অন্যদিকে মাসুদ রানার কয়েকজন সহযোগী আশপাশে ওত পেতে থাকেন। এ সময় সিম বিক্রির টাকা নিয়ে তাঁরা বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ান। একপর্যায়ে মাসুদ রানার সঙ্গে থাকা চাকু দিয়ে পারভেজ ইসলামকে আঘাত করা হয়। পারভেজের বন্ধু রিপন হাসানের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে আসামিরা পালিয়ে যান। পরে পারভেজকে উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই দিনই চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় পারভেজের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে সোনাতলা থানায় পরদিন ১২ এপ্রিল অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা করেন। পরে এই মামলার তদন্তভার পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পিবিআইয়ের পরিদর্শক জাহিদ হাসান বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ৮ মে গাজীপুর থেকে আসামি মারুফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর মারুফুল আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন