বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নৌকার নির্বাচনী ক্যাম্প পরিচালনার দায়িত্বে থাকা রাজাই করিম দেওয়ান বলেন, ‘গতকাল বুধবার রাত ১২টার দিকে আনারস প্রার্থীর সমর্থকেরা মিছিল নিয়ে আসে। পরে আমাদের মারধর করার জন্য উত্তেজিত হয়ে ওঠে। এমন পরিস্থিতি দেখতে পেয়ে আমরা দৌড়ে পালিয়ে যাই। এ সময় তারা নৌকার ক্যাম্পে আগুন লাগিয়ে দেয়। কাপড় দিয়ে ঘেরা ক্যাম্পের চেয়ার-টেবিল পুড়ে গেছে।’

নৌকার প্রার্থী আবুল হাসেম বলেন, ‘গতকাল রাত ৯টার দিকে নৌকার পোস্টার-ব্যানার ছিঁড়ে ফেলে আনারস মার্কার সমর্থকেরা। পরে পুলিশকে জানালে তারা এসে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। পুলিশ চলে গেলে আমরা সবাই ক্যাম্প থেকে যার যার বাসায় চলে যাই। পরে শুনতে পারি রাত ১২টার দিকে বিপক্ষের লোকজন আমার নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়িয়ে দিয়েছে।’

আবুল হাসেম আরও জানান, নজিরবিহীন সন্ত্রাসী এই কর্মকাণ্ড করে আওয়ামী লীগের কর্মী–সমর্থকদের দমিয়ে রাখা যাবে না। যারা তাঁর নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন দিয়েছেন, তাঁরা কখনো শান্তিপ্রিয় মানুষ হতে পারেন না।

পারভেজ মৃধা বলেন, ‘নৌকার লোকজন নিজেরাই তাদের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন দিয়েছে। ঝামেলা পাকাতে আমার সমর্থিত লোকজনকে দোষারোপ করছে।’

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজিব খান বলেন, ‘আজ সকালে অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন