বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হামলায় মেহন্দীগঞ্জ পৌরসভার সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও উপজেলা মহিলা দলের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদা বেগম, উপজেলা মহিলা দলের কর্মী হোসনে আরা, আরজু বেগম, জেলা মহিলা দলের সাবেক সভাপতি শরীফ তাসলিমা, জেলা মহিলা দলের (উত্তর) সভাপতি শায়লা শারমিন, ছাত্রদলের সাবেক নেতা নূরে আলম, উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মামুন রশিদ ও উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আমজাদ হোসেন আহত হয়েছেন। আহত অন্য দুজনের নাম জানা যায়নি। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে রাশেদা বেগম, শরীফ তাসলিমা ও আমজাদ হোসেনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালে পাঠানো হয়েছে।

বরিশাল জেলা মহিলা দলের সভাপতি শায়লা শারমিন অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের সন্ত্রাসীরা রামদা ও লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা চালিয়েছেন। হামলার সময় তাঁর মুঠোফোন ও গলার চেইন ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ‘নারীদের ওপর এমন ন্যক্কারজনক হামলা নজিরবিহীন। যেভাবে আমাদের মারধর করা হয়েছে, তা বর্ণনা করার মতো না। সরকারবিরোধী দলকে কথা বলতে দিচ্ছে না। এখন মহিলা দলের কর্মিসভায়ও নারকীয় তাণ্ডব চালাচ্ছে এই অবৈধ সরকারের গুন্ডারা।’

অভিযোগের বিষয়ে মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. খোরশেদ আলম বলেন, এই হামলার সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো নেতা-কর্মী জড়িত নন। মেহেন্দীগঞ্জে বিএনপির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব আছে। এই দ্বন্দ্বের জেরে এই হামলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন