বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত আটটার দিকে হাসান মুর্শেদ বাকৃবি থেকে আদিল পরিবহনের বাসে করে শেরপুরে যাচ্ছিলেন। অসাবধানতাবশত তাঁর ডান হাত জানালার বাইরে ছিল। বাসটি ফুলপুরের বাশাটি বাজার এলাকা অতিক্রম করার সময় শেরপুর থেকে ফুলপুরগামী একটি ট্রাকের সঙ্গে পাশাপাশি সংঘর্ষ হয়। এতে হাসান মুর্শেদের ডান হাতটি শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে মাটিতে পড়ে যায়।

নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে বাসটি ফেলে রেখে এর চালক পালিয়ে যান। এ সময় স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহত শিক্ষককে উদ্ধার করে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে হাসান মুর্শেদকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বৃহস্পতিবার রাতেই ঢাকার ওই হাসপাতালে তাঁকে নেওয়া হয়। হাতের বিচ্ছিন্ন অংশ সংগ্রহ করে হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত এক চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, হাত–বিচ্ছিন্ন অবস্থায় ওই শিক্ষককে হাসপাতালে আনা হয়। তাঁর প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। দ্রুত তাঁকে ঢাকা পাঠানো হয়।

বাকৃবির প্রক্টর অধ্যাপক মুহাম্মদ মহির উদ্দীন জানান, বৃহস্পতিবার রাতেই ঢাকার ওই হাসপাতালে হাসান মোরশেদের হাতের অস্ত্রোপচার করা হয়েছে।

নকলা থানার ওসি মুহাম্মদ মুশফিকুর রহমান বলেন, পুলিশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে থেকে বাসটি আটক করেছে। তবে এর চালক পলাতক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন