default-image

স্থগিত হয়ে যাওয়া যশোর পৌরসভার নির্বাচন ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার বিকালে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক প্রজ্ঞাপন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

নির্বাচন কমিশনের উপসচিব আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, যশোর পৌরসভার মেয়র, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হবে। একই সঙ্গে গত ৯ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন কার্যক্রম যে অবস্থায় ছিল, সেই পর্যায় থেকেই ১৫ মার্চ প্রার্থীতা প্রত্যাহার এবং ৩১ মার্চ ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এ নির্বাচনে অংশ নেওয়া মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের সূত্রে জানা গেছে, যশোর পৌর এলাকায় নতুন করে চারটি ইউনিয়নের বাসিন্দাদের অন্তর্ভুক্ত করে সম্প্রতি প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করা হয়। কিন্তু পৌরসভার ভোটার তালিকায় ওই চার ইউনিয়নের বাসিন্দাদের নাম নেই। এমন পরিস্থিতিতে ওই সব ইউনিয়নের বাসিন্দারা তাঁদের ভোটাধিকার দেওয়ার দাবি জানিয়ে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করেন।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি ওই আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ যশোর পৌরসভার নির্বাচন আগামী তিন মাসের জন্য স্থগিতের আদেশ দেন।

এদিকে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি যশোর পৌরসভায় ভোট গ্রহণের তারিখ ঠিক রেখেই প্রতীক বরাদ্দ দেয় জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। পরে সুপ্রিম কোর্টের চেম্বার আদালতে এ বিষয়ে শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও চেম্বার বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান তা মুলতবি করেন। একই সঙ্গে হাইকোর্টের আদেশ বের হওয়ায় রাষ্ট্রপক্ষ আইনজীবীকে নিয়মিত আবেদন (সিপি) করতে বলেন। পরে আদালত রিট পিটিশন খারিজ করে দেন। ফলে ভোট গ্রহণে কোনো বাধা না থাকলেও নির্বাচন কমিশন ঘোষিত দিনে ভোট গ্রহণ করেনি। এ অবস্থায় বুধবার বিকালে ইসির ওয়েবসাইটে ভোট গ্রহণের তারিখ ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন