বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জানতে চাইলে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবীর বলেন, চলতি বছরের ৩ জুন যশোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরজাহান ইসলামের মৃত্যু হলে পদটি শূন্য হয়। এরপর উপনির্বাচনের দিন ঘোষণা করা হলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, জাতীয় পার্টির প্রার্থী নূরুল আমিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুর রহমান কাকন মৃধা মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্র যাচাই–বাছাইয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুর রহমান কাকন মৃধার মনোনয়ন ফরম বাতিল করা হয়।

এদিকে রোববার জাতীয় পার্টির প্রার্থী নূরুল আমিন তাঁর প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলে মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরীর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় নিশ্চিত হয়ে যায়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন