বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
আমার ঘটনা পেপারে লিখে সাংবাদিকেরা ভালো কাজ করেছেন। এতে অন্য মেয়েরা অনুপ্রাণিত হবে। বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে। আমি পড়াশোনা শিখে সাংবাদিক হতে চাই।
বর্ষা

বান্ধবীরা জানতে চাইছিল, নিজের বিয়ে ঠেকাতে সে যে পুলিশের কাছে চলে গেল, তার ভয় করেনি? উত্তরে বর্ষা বলে, ‘আমি জানতাম, হয়তো তারা অন্য ব্যবস্থা না নিলেও বিয়েটা অন্তত বন্ধ করবে। এটা তো পুলিশেরই কাজের অংশ, দায়িত্ব।’ তার খবরটি গণমাধ্যমে প্রকাশ করে সাংবাদিকেরা ভালো কাজ করেছেন বলে মনে করে সে। তার ভাষায়, ‘আমার ঘটনা পেপারে লিখে সাংবাদিকেরা ভালো কাজ করেছেন। এতে অন্য মেয়েরা অনুপ্রাণিত হবে। বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে।’ জানাল, পড়াশোনা শিখে সে সাংবাদিক হতে চায়।

বর্ষা প্রথম আলোকে বলে, কয়েক দিন ধরে মামা ও খালারা মিলে তার বিয়ের জন্য চাপ দিয়ে আসছিলেন। সে বিয়ে করতে চাইছিল না। এমন টানাপোড়েনের মধ্যে সে নিজের পড়াশোনায় মনোযোগী হতে পারছিল না। এই বয়সে বিয়ে হয়ে যাবে, ভাবতেই আতঙ্কে ঘুমাতে পারত না সে। বর্ষা বলছিল, ‘প্রায়ই স্বপ্নে দেখি, মা বিয়ে দিয়ে দিচ্ছেন। ঘুম থেকে জেগে ওঠার পর খুব খারাপ লাগে। এরপর যেকোনো মূল্যে বিয়ে বন্ধের চিন্তা করতে থাকি। মনে মনে একটা উপায় বের করি। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার থানায় হাজির হয়ে ওসি স্যারকে সব খুলে বললে তিনি দ্রুত ব্যবস্থা নেন। বন্ধ হয়ে যায় আমার বিয়ে।’

বর্ষা বলছিল, সদর থানার পাশ দিয়ে তাকে বাড়ি থেকে স্কুলে আসা-যাওয়া করতে হয়। ‘বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে পুলিশকে সহযোগিতা করুন’, এমন ব্যানার দেখে সে পুলিশের সহযোগিতা চাইতে যায়।

প্রায়ই স্বপ্নে দেখি, মা বিয়ে দিয়ে দিচ্ছেন। ঘুম থেকে জেগে ওঠার পর খুব খারাপ লাগে। এরপর যেকোনো মূল্যে বিয়ে বন্ধের চিন্তা করতে থাকি। মনে মনে একটা উপায় বের করি।
বর্ষা

ঝিনুক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেবেকা সুলতানা বলেন, মেয়েটির এসএসসি পরীক্ষা পর্যন্ত বিনা খরচে প্রাইভেট পড়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘মেয়েটির স্কুলে যাতায়াতের জন্য যে খরচ প্রয়োজন, তার স্থায়ী সমাধান করে দিয়েছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন