রংপুরে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো)-২ (বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এই বিতরণ কেন্দ্রের মুন্সিপাড়া ফিডারের বিরাট এলাকার কিছু জায়গায় বিদ্যুতের তারের সঙ্গে গাছের ডালপালা রয়েছে। বৃষ্টি এলে সেখানে পানি পড়ে এবং বাতাসের কারণে ডালের সঙ্গে তারের ঘষা লেগে তার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে আপনা-আপনি বিদ্যুৎ-বিভ্রাট ঘটে বলে নেসকোর পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে। এ সময় বিদ্যুতের লাইনে ত্রুটি বের করে মেরামত করতে অনেক সময় লেগে যায়।

প্রতিদিন বিদ্যুতের লুকোচুরি খেলায় মুন্সিপাড়া ফিডারের আওতাধীন মুন্সিপাড়া, কেরানীপাড়া, মাস্টারপাড়া, কাচারিবাজার, আদালত, পুলিশ লাইনস, সরকারি অফিসপাড়ার বেশ কয়েকটি অফিস ও হনুমানতলার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।

নগরের কোরানীপাড়ার বাসিন্দা তরিকুল ইসলাম বলেন, গতকাল বৃষ্টির সঙ্গে তেমন বাতাস ছিল না। কিন্তু বৃষ্টি আসার সঙ্গে সঙ্গেই বিদ্যুৎ চলে গেছে। বৃষ্টি থামলেও বিদ্যুৎ আসতে অনেক সময় লাগে। অনেক সময় মধ্যে কয়েক সেকেন্ডের জন্য বিদ্যুৎ এসে আবার চলে যায়। এতে বাতি, পাখাসহ অনেক বৈদ্যুতিক সামগ্রী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

মুন্সিপাড়ার বাসিন্দা সোহরাব হোসেন বলেন, গত বছরও বিদ্যুৎ অনেক ভুগিয়েছে। এবারও একই লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া বিভিন্ন এলাকা থেকে বিদ্যুতের কয়েকজন গ্রাহক এই প্রতিবেদককে মুঠোফোনে বিদ্যুতের দুরবস্থার বিষয়ে প্রতিকার চেয়েছেন। অনেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেও বিদ্যুৎ-বিভ্রাটের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে নেসকোর একজন প্রকৌশলী বলেন, কয়েক দিন ধরে স্থানীয় বিদ্যুতের গ্রিডে ত্রুটি থাকায় এ ধরনের সমস্যা হচ্ছে।

বিদ্যুতের গ্রিডে ত্রুটির অভিযোগ অস্বীকার করে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো) প্রধান প্রকৌশলী শাহাদত হোসেন বলেন, বৃষ্টির সঙ্গে বাতাস উঠলে বিদ্যুৎ-বিভ্রাটের ঘটনা ঘটে। কারণ, অনেক জায়গায় বিদ্যুতের তারের সঙ্গে গাছের ডাল রয়েছে। বাতাসের সময় ডালের সঙ্গে তারের ঘষা লেগে তার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ওই স্থানে বৃষ্টির পানি পড়েও বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার ঘটনা ঘটে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে সেটি মেরামত করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন