নিহত দুই কিশোরের স্বজন ও স্থানীয় লোকজন জানান, আজ সকালে জোবায়েদ ও সিয়াম বাড়িতে কাউকে কিছু না জানিয়ে তারা হাঁটতে বের হয়। পরে তারা হাঁটুভাঙ্গা স্টেশন–সংলগ্ন রেললাইনে যায়। এ সময় ডাউন লাইন দিয়ে মালবাহী একটি কন্টেইনার ট্রেন চট্টগ্রামের দিকে যাচ্ছিল। তারা দুজন একসঙ্গে লাইনের ওপর দাঁড়িয়ে ওই ট্রেনের ছুটে যাওয়া দেখছিল। একই সময় বিপরীত দিক থেকে আপ লাইন ধরে তিতাস কমিউটার ট্রেন এলে দুই কিশোর ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে তাদের মৃত্যু হয়।

খবর পেয়ে নরসিংদী রেলওয়ে ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই দুই কিশোরের লাশ উদ্ধার করে। স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে নিহত দুই কিশোরের পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের লাশ শনাক্ত করেন।

নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও উপপরিদর্শক ইমায়েদুল জাহেদী বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী তিতাস কমিউটার ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলে দুই কিশোরের মৃত্যু হয়। পরিবারের সদস্যদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তাদের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন