বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, দুপুর ১২টার দিকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. নাসির উদ্দীন ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী খোরশেদ আলমের কর্মী-সমর্থকেরা ওই কেন্দ্র দখল করতে আসেন। এ সময় দুই পক্ষই টেঁটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের সময় দুটি ব্যালট বাক্স ভাঙচুর ও দুটি বাক্স ছিনিয়ে নেওয়া হয়।

এ সময় বাধা দিতে গিয়ে পুলিশ সদস্য নিয়ামত গুরুতর আহত হন। পরে তাঁকে সেখান থেকে উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

নরসিংদী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) সৈয়দ আমীরুল হক জানান, ওই পুলিশ সদস্য পায়ে, নাকে ও চোখে গুরুতর আঘাত নিয়ে হাসপাতালে এসেছিলেন। তাঁকে এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানীর পুলিশ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে বেলা দুইটার দিকে নিলক্ষা ইউপির ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বীরগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকেরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ান। এ সময় এক ঘণ্টা ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকার পর বেলা তিনটার দিকে ওই কেন্দ্রের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও রায়পুরার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. সুমন মিয়া ভোট গ্রহণ স্থগিত করে দেন।

ভোট স্থগিতের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. সুমন মিয়া জানান, দুপুরে চরসুবুদ্ধি ও নিলক্ষা ইউপির দুই ভোটকেন্দ্রে দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে ভোট গ্রহণ বন্ধ হয়ে যায়। পরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ভোট গ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন