বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যুক্তিতর্ক শুরুর আগে আয়শার আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, ‘আজ আদালতে আয়শার পক্ষে আমরা যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করব। আশা করি, আজই আমাদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হবে। এর মধ্য দিয়ে রিফাত হত্যা মামলার ১০ আসামির বিচার কার্যক্রম শেষ হবে। এরপর এ মামলার রায়ের জন্য আদালত তারিখ নির্ধারণ করবেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘উচ্চ আদালতের আদেশে জামিনে থাকা আয়শা সিদ্দিকার জামিনের মেয়াদ আজ শেষ হয়েছে। আজ আমার জিম্মায় পুনরায় জামিনের জন্য আদালতে আবেদন করব।’

গত বছরের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তাঁর স্ত্রী আয়শার সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা। এরপর রিফাতকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার পর ওই দিন বিকেলে তিনি মারা যান। পরদিন ২৭ জুন রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেন। এই মামলায় একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে প্রধান সাক্ষী করা হয় আয়শাকে।

পরে গত ১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শাসহ প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ২৪ জনের নামে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করে পুলিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন। মো. মুসা নামের এক আসামি পলাতক রয়েছেন।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আছাদুজ্জামান।

রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, মো. মুসা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর ও কামরুল ইসলাম সাইমুন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন