বিজ্ঞাপন
default-image

রাজশাহী

বেলা ১১টায় রাজশাহী নগরের সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়ন (আরইউজে)। সংগঠনের সভাপতি রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হকের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য দেন রাজশাহীর বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান খান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মশিহুর রহমান, রাজশাহী সাংবাদিক কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান মো. লিয়াকত আলী, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক আবুল কালাম মুহম্মদ আজাদ, আরইউজের সাবেক সভাপতি কাজী শাহেদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মামুন-অর-রশীদ, রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মেহেদী হাসান শ্যামল, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) নির্বাহী সদস্য জাবীদ অপু, সিনিয়র ফটোসাংবাদিক সেলিম জাহাঙ্গীর, আরইউজের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈয়বুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রমুখ।

সুনামগঞ্জ

সুনামগঞ্জ পৌর শহরের আলফাত স্কয়ারে সকালে মানববন্ধন করেন সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির দুই অংশের সদস্যরা। এতে সংবাদকর্মী ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি পঙ্কজ কান্তি দে, জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক এনাম আহমেদ, জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি বিন্দু তালুকদার, সহসভাপতি কুলেন্দু শেখর দাশ, সাধারণ সম্পাদক মো. বোরহান উদ্দিন, জেলা খেলাঘর আসরের সাধারণ সম্পাদক মো. রাজু আহমেদ, সমাজকর্মী নাসিম চৌধুরী প্রমুখ। পরে একই স্থানে একই দাবিতে মানববন্ধন করেন সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির আরেক অংশের সদস্যরা। এখানে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির এই অংশের সভাপতি লতিফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এমরানুল হক চৌধুরী, সদস্য শহীদ নূর আহমদ প্রমুখ।

পটুয়াখালী

দুপুর ১২টায় পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে জেলায় কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীরা সমাবেশ করেন। এতে বক্তব্য দেন পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বপন ব্যানার্জী, সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, একুশে টিভির জেলা প্রতিনিধি জেলা টেলিভিশন জার্নালিস্ট ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স প্রমুখ।
বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হয়। নোয়াখালীতে কর্মরত সাংবাদিকদের ব্যানারে আয়োজিত এ প্রতিবাদ কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আলমগীর ইউসুফ, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের জেলা আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা তারেকেশ্বর দেবনাথ (নান্টু), জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আবুল হাশেম, উন্নয়ন সংগঠক নুরুল আলম (মাসুদ), প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জামাল হোসেন (বিষাদ), একাত্তর টেলিভিশনের প্রতিনিধি মিজানুর রহমান, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের প্রতিনিধি আবু নাছের (মঞ্জু) প্রমুখ। চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের প্রতিনিধি সুমন ভৌমিকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সাবেক সহসভাপতি শাহ এমরান সুজন, সময় টেলিভিশনের প্রতিনিধি সাইফুল্যাহ কামরুল, ডিবিসি টেলিভিশনের প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান চৌধুরীসহ (কাজল) জেলা ও বিভিন্ন উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকেরা অংশগ্রহণ করেন।

নেত্রকোনা

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নেত্রকোনা শহরের মোক্তারপাড়া এলাকায় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে নেত্রকোনা সাংবাদিক সমাজের ব্যানারে প্রতিবাদ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। কর্মসূচিতে ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিক ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ নানা শ্রেণি-পেশার লোকজন অংশ নেন। ঘণ্টাব্যাপী কর্মসূচি চলাকালে বক্তব্য দেন জেলা প্রেসক্লাবের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার জাহান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এম মুখলেছুর রহমান খান, জেলা সুজনের সভাপতি শ্যামলেন্দু পাল, আবদুর রহমান ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মো. দিলওয়ার খান, নেত্রকোনা সাহিত্য সমাজের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল্লাহ এমরান, জেলা উদীচীর সহসম্পাদক ও ছড়াকার সঞ্জয় সরকার, জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি খলিলুর রহমান শেখ, এনটিভির প্রতিনিধি ভজন দাশ, মাইটিভির প্রতিনিধি আনিসুর রহমান, বাংলার নেত্র পত্রিকার সম্পাদক কামাল হোসাইন প্রমুখ।
রোজিনা ইসলামের আশু মুক্তি দাবি করে কেন্দুয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী চৌধুরী ও কলমাকান্দা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. ফকরুল আলম বিবৃতি দিয়েছেন।

default-image

বরগুনা

দুপুর ১২টায় বরগুনা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বরগুনা প্রেসক্লাবের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মো. জাফর হোসেনের সঞ্চালনায় ঘণ্টাব্যাপী এ কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন বরগুনা প্রেসক্লাবের সভাপতি জহিরুল হাসান বাদশা, সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাফিজ, জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আবু জাফর মো. সালেহ, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি চিত্তরঞ্জন শীল, জেলা পাবলিক পলিসি ফোরামের সভাপতি ও বরগুনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. হাসানুর রহমান ঝন্টু, সাবেক সভাপতি মনির হোসেন কামাল, উপকূলীয় উন্নয়ন সংস্থা জাগো নারীর প্রধান নির্বাহী হোসনে আরা হাসি, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মুখপাত্র আরিফুর রহমান মারুফ প্রমুখ।

জামালপুর

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জামালপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। একই সঙ্গে আগামীকাল বুধবার সকালে জামালপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। আজকের প্রতিবাদ সভায় জামালপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি হাফিজ রায়হান বলেন, রোজিনা ইসলামের ঘটনা প্রমাণ করে বর্তমানে কোনো সাংবাদিকই নিরাপদ নন। রোজিনাকে কারাগারে আটকে রেখে সাংবাদিকদের কলম বন্ধ করা যাবে না। জামালপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান বলেন, সাংবাদিক রোজিনা সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনা নিয়ে অনেকগুলো আলোচিত প্রতিবেদন করেছেন। এসব প্রতিবেদনের কারণেই রোজিনাকে হেনস্তা ও তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জামালপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সহসভাপতি ও সময় টিভির জেলা প্রতিনিধি মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, একজন সাংবাদিকের সঙ্গে যা করা হয়েছে, সেটা ন্যক্কারজনক। সাংবাদিকেরা এখন আর কেউ নিরাপদ নন। সেটা এই ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণ হয়ে গেল।

সভায় উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক বাংলাভিশনের জেলা প্রতিনিধি জুলফিকার মোহাম্মদ জাহিদ, আলোচিত জামালপুর পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক সাযাযাদ আনসারী, চ্যানেল টুয়েন্টিফোর ও সমকালের জেলা প্রতিনিধি আনোয়ার হোসেন মিন্টু, নিউজ পোর্টাল বাংলারচিঠি ডটকমের সম্পাদক জাহাঙ্গীর সেলিম ও কালের কণ্ঠ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মোস্তফা মনজুসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীরা।

শ্রীপুর

শ্রীপুরে কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মীবৃন্দ ব্যানারে গাজীপুরের শ্রীপুরে মানববন্ধন কর্মসূচিতে রোজিনা ইসলামের হেনস্তার তীব্র প্রতিবাদ করা হয়। সভায় সমকালের গাজীপুর প্রতিনিধি ইজাজ আহমেদ বলেন, ‘অনুসন্ধানী প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম তথ্য চুরি করে থাকলে আমিও চোর। আমিও তথ্য চুরি করেছি। আমার বিরুদ্ধেও মামলা হোক, আমাকে গ্রেপ্তার করা হোক।’ সময় টেলিভিশনের নিজস্ব প্রতিবেদক রাজিবুল হাসান বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা এমন রোজিনা ইসলাম কালেভদ্রে তৈরি হয়। তাকে হেনস্তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। অতিসত্বর রোজিনা ইসলামকে মুক্তি দেওয়া হোক। প্রথম আলোর শ্রীপুর প্রতিনিধি সাদিক মৃধা বলেন, সত্য প্রকাশের চেষ্টাকে এভাবে প্রতিহত করা অত্যন্ত হতাশাজনক। রোজিনা ইসলামের কলম বন্ধ হওয়ার নয়, হবে না। দৈনিক ইনকিলাবের শ্রীপুর প্রতিনিধি আবদুল মতিন বলেন, রোজিনা ইসলাম অন্যায়ের খবরগুলো নিয়মিত লিখছিলেন। তাঁকে অনৈতিক প্রস্তাবের মাধ্যমে হয়তো থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টাও করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁকে থামানো যায়নি। ব্যর্থ হয়ে এ ধরনের অন্যায় কাজ করা হয়েছে।

সান্তাহার

সকালে বগুড়ার সান্তাহার প্রেসক্লাবে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম আম্বিয়ার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন প্রথম আলোর আদমদীঘি প্রতিনিধি খায়রুল ইসলাম, দৈনিক জনকণ্ঠের হারেজুজ্জামান, দৈনিক সমকালের রতন ইসলাম, ভোরের পাতার সাগর খান, ইনকিলাবের মনসুর আলী, ভোরের দর্পণের রবিউল ইসলাম, সাংবাদিক তোফায়েল হোসেন, আবুবক্কর সিদ্দীক, মমতাজুর রহমান, নয়ন ইসলাম, আবদুল মতিন প্রমুখ।

default-image

রংপুর

বেলা একটার দিকে রংপুর প্রেসক্লাব চত্বরের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রংপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি রশীদ বাবুর সভাপতিত্বে ও ঢাকা পোস্টের নিজস্ব প্রতিবেদক ফরহাদুজ্জামান ফারুকের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সদরুল আলম, সিনিয়র সাংবাদিক লিয়াকত আলী, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মানিক সরকার, রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ বায়েজীদ আহমেদ, সিটি প্রেসক্লাবের জুয়েল আহমেদ, রংপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সরকার মাজহারুল মান্নান, চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরের রংপুর স্টাফ রিপোর্টার ফখরুল শাহীন, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি আসাদুজ্জামান আফজাল, টেলিভিশন ক্যামেরা জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (টিসিএ) রংপুরের সাধারণ সম্পাদক এহসানুল সুমন, রংপুর ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম জীবন প্রমুখ।

সমাবেশে সংহতি জানিয়ে রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাব, সিটি প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ইউনিটি, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, টিসিএসহ বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকেরা অংশ নেন। তাঁরা অনুসন্ধানী সাংবাদিক রোজিনা ইসলামর বিরুদ্ধে মামলা, হামলা ও নির্যাতনের ঘটনাকে মুক্ত সাংবাদিকতার ওপর নিন্দনীয় আঘাত বলে উল্লেখ করেন।

বরিশাল

দুপুর ১২টার দিকে বরিশাল নগরের সদর রোড অশ্বিনীকুমার হলের সামনে বিক্ষোভ ও সমাবেশ হয়েছে। বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত এই বিক্ষোভ ও সমাবেশে সংহতি জানান বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা। পরে নগরে বিক্ষোভ করেন সাংবাদিকেরা।

সমাবেশে রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সভাপতি সুশান্ত ঘোষ বলেন, ‘স্বাস্থ্য খাতে সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট ও অব্যবস্থাপনার বিষয়ে রোজিনা ইসলাম ধারাবাহিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করে এসব অনিয়ম তুলে এনেছেন। আর এ জন্যই পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য গেলে ঠুনকো অজুহাতে তাঁকে সচিবালয়ে হেনস্তা করা হয় এবং হয়রানিমূলক মামলা করে জেলে পাঠানো হয়েছে। এটা নিন্দার অযোগ্য। আমরা অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি, মামলা প্রত্যাহার এবং এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’

default-image

অনুষ্ঠানে রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল বিশ্বাস বলেন, রোজিনা ইসলামের সঙ্গে যা করা হয়েছে, তা স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য শুধু হুমকি নয়, দুর্নীতিবাজদের সীমাহীন দৌরাত্ম্য আর ক্ষমতার চূড়ান্ত আস্ফালন।

সমাবেশে আরও বক্তৃতা দেন রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মিথুন সাহা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাপ্পি মজুমদার, কবি হেনরি স্বপন, জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি স্বপন খন্দকার, সাংবাদিক মুরাদ আহমেদ, বিধান সরকার, ফেরদৌস সোহাগ, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক এম জসীম উদ্দীন, সাংবাদিক হাসিবুল ইসলাম, সৈয়দ মেহেদী হাসান প্রমুখ।

কাল বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় মানববন্ধন ও সমাবেশের ডাক দিয়েছে বরিশাল প্রেসক্লাব। বেলা সাড়ে ১১টায় একই কর্মসূচি দিয়েছে ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন।

সিলেট

বেলা ১টার দিকে সিলেট নগরের চৌহাট্টা এলাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে সিলেটে টেলিভিশন সাংবাদিকদের সংগঠন ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (ইমজা) প্রতিবাদ সভা ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে। ইমজার সাধারণ সম্পাদক আনিস রহমানের সঞ্চালনায় ও সহসভাপতি মঈন উদ্দিন মঞ্জুর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকরামুল কবির, সিলেট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রশীদ, সিলেট ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ আশরাফুল আলম, সিলেট টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি দ্বিগেণ সিংহ, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মুন্সি, জেলা প্রেসক্লাবের সহসাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রাসেল, স্পোর্টস জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাদিকুর রহমান, ইমজার সাবেক সভাপতি কামকামুর রাজ্জাক, মঈনুল হক, মাহবুবুর রহমান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সজল ছত্রী, বাংলা টিভির এস আলম আলমগীর, ডিবিসির প্রত্যুষ তালুকদার, চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরের গোলজার আহমদ, এসএ টিভির শ্যামানন্দ শ্যামল, আবু বকর, ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের গোপাল বর্ধন, মাধব কর্মকার, যমুনা টিভির নিরানন্দ পাল, মাঈদুল রাসেল, সোহাগ যাদু, এটিএন নিউজের অনিল পাল, চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরের দীপক বৈদ্য, ডিবিসির হাসান শিকদার প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, মনে রাখতে হবে, গণমাধ্যমের টুঁটি চেপে ধরা মানেই হচ্ছে রাষ্ট্র তার সঠিক পথে চলছে না। আমলাদের টাকার কুমির আর ক্যাডার বানিয়ে দেশ চালানো যায় না। বক্তারা সরকারের কাছে অবিলম্বে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সব দপ্তরের ভয়াবহ দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং রোজিনা ইসলামসহ সব সংবাদকর্মীর নিরাপত্তা দাবি করেন।

default-image

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আল আজাদ ও সাধারণ সম্পাদক ছামির মাহমুদ সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তির দাবির পাশাপাশি দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানিয়ে মঙ্গলবার সকালে বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে তাঁরা উল্লেখ করেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে একজন সাংবাদিককে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সেবা বিভাগে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন ও অপদস্থ করা হয়েছে, যা কখনোই মেনে নেওয়া যায় না। একজন পেশাদার সাংবাদিকের সঙ্গে এমন আচরণ করার পর তাঁকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে, যা সাংবাদিক সমাজকে ভাবিয়ে তুলেছে। অবিলম্বে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে মুক্তি দিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যে বা যাঁরা এ ঘটনায় জড়িত, তাঁদের শাস্তি দিতে হবে। অন্যথায় সিলেট জেলা প্রেসক্লাব কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে।

default-image

সাতক্ষীরা

দুপুর ১২টার দিকে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাংবাদিক নেতারা মানববন্ধন করেন। মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি মমতাজ আহমেদ। সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলীর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু আহমেদ, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক কল্যাণ ব্যানার্জি, স্বদেশের নির্বাহী পরিচালক মাধব দত্ত, সাবেক সভাপতি আনিসুর রহিম, মনিরুল ইসলাম মিনি, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সহসভাপতি হাবিবুর রহমান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম কামরুজ্জামান, সাংবাদিক রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী, সেলিম রেজা, হাফিজুর রহমান, আবদুল জলিল, ইদ্রিস আলী, অসীম বরণ চক্রবর্তী, দিলীপ কুমার দেব, আকরামুল ইসলাম প্রমুখ। মানববন্ধনে সাতক্ষীরা বন্ধুসভা, বেসরকারি সংস্থা স্বদেশসহ বিভিন্ন সুধীজন অংশ নেয়।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (রাবিসাস) ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসক্লাব দুপুরে দুটি পৃথক বিবৃতিতে প্রতিবাদ জানিয়েছে। বিবৃতিতে তারা রোজিনা ইসলামের মুক্তি ও তাঁকে হেনস্তাকারীদের বিচার দাবি করেছে। রাবিসাসের সভাপতি শাহীন আলম ও সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান খান এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে বেশ কয়েকটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করেছেন সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। আমরা মনে করি, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নানা অনিয়ম নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করায় তিনি অনিয়মে জড়িত ব্যক্তিদের আক্রোশের শিকার হয়েছেন। এ জন্যই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে তাঁকে কয়েক ঘণ্টা আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালানো হয়েছে। পরে তাঁর নামে হয়রানিমূলক মামলাও দেওয়া হয়েছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে নির্যাতনে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাই।’

যশোর

যশোরে বেলা দুইটার দিকে সাংবাদিকদের সাতটি সংগঠনের নেতারা জরুরি বৈঠকে বসে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও হেনস্তাকারীদের শাস্তির দাবিতে কাল বুধবার বেলা ১১টায় শহরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সড়কে যশোর প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ, পরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহর ঘুরে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে গিয়ে স্মারকলিপি প্রদান।

দুপুরে সাতটি সংগঠনের জরুরি বৈঠকে প্রেসক্লাব ছাড়াও যশোর সংবাদপত্র পরিষদ, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোর, যশোর জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রেসক্লাবের সম্পাদক আহসান কবীর আহসান কবীর বলেন, ‘রোজিনা ইসলামের মতো খ্যাতিমান সাংবাদিক পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্তাব্যক্তিদের দ্বারা হেনস্তার শিকার হয়েছেন। পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখার পর তাঁকে শাহবাগ থানা-পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। পরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ফাঁসিয়ে আদালতের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এসব ঘটনা স্বাধীন সাংবাদিকতার অন্তরায়। এই ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সঙ্গে বুধবারের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে সাংবাদিক সমাজকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেওয়ার জন্যও আহ্বান জানাচ্ছি।’

রাঙামাটি

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের জেলা প্রশাসন ফটকের সামনে রাঙামাটির সাংবাদিকেরা মানববন্ধন করেছেন। রাঙামাটি প্রেসক্লাবের উদ্যোগে এ মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন প্রেসক্লাবের সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নন্দন দেব নাথ, প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈকত রঞ্জন চৌধুরী, মো. সোলায়মান, নারীবিষয়ক সম্পাদক ফাতেমা জান্নাত প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, দেশে করোনা মহামারির সময়ে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম স্বাস্থ্য বিভাগের দুর্নীতি ও অনিয়মের বিষয়ে ধারাবাহিকভাবে প্রতিবেদন করেছেন। সেই অনিয়ম ঢাকতে রোজিনা ইসলামকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও হেনস্তাকারীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান বক্তারা।

পাবনা

দুপুরে পাবনায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন জেলায় কর্মরত সাংবাদিকেরা। পাবনা প্রেসক্লাবের আয়োজনে এ কর্মসূচি পালিত হয়। কর্মসূচি থেকে রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবিতে তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন প্রেসক্লাবের নেতারা। কর্মসূচির মধ্যে মঙ্গলবার বিক্ষোভ-সমাবেশ, কাল বুধবার বেলা ১১টায় জেলা শহরের আবদুল হামিদ সড়কে মানববন্ধন এবং বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় প্রেসক্লাব সড়কে প্রতীকী অনশন কর্মসূচি করা হবে।

বেলা দুইটায় দিকে জেলা শহরে কর্মরত সাংবাদিকেরা প্রেসক্লাবে সমবেত হন। এরপর তাঁরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মধ্য শহরের ট্রাফিক মোড়ে সমাবেশে মিলিত হয়। পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এ বি এম ফকজুল রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত আফরোজের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন মাছরাঙা টেলিভিশনের উত্তরাঞ্চলীয় ব্যুরো প্রধান উৎপল মির্জা, পাবনা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মাহবুব মোর্শেদ, একুশে টেলিভিশনের পাবনা প্রতিনিধি রাজিউর রহমান, বাংলাদেশ টুডের প্রতিনিধি আবদুল হামিদ খান প্রমুখ।

default-image

বগুড়া

বেলা ১১টার দিকে বগুড়া শহরের সাতমাথায় সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট বগুড়া জেলা শাখা প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। এই প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের ওপর হামলা, নির্যাতন ও হেনস্তার তীব্র নিন্দা জানানো হয়। সেই সঙ্গে সাংবাদিক হেনস্তায় জড়িত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার শাস্তি এবং রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা সাজানো ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ তাঁর নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানানো হয়। এ ছাড়া সমাবেশ থেকে দুর্নীতির প্রশ্রয়দাতা স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং স্বাস্থ্যসুরক্ষা সচিবের পদত্যাগ দাবি করা হয়।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি ধনঞ্জয় বর্মণ। ছাত্রনেতা পূজা প্রামাণিকের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) জেলা কমিটির সদস্য রাধা রানী বর্মণ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি শ্যামল বর্মন, সংগঠনের সরকারি আজিজুল হক কলেজ শাখার সদস্যসচিব নিয়তি সরকার, সরকারি পলিটেকনিক শাখার নেতা রায়হান রাহেল প্রমুখ। সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য দেন নারী সাংবাদিক শাপলা খন্দকার।

টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের সাংবাদিকেরা দুপুর ১২টার দিকে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন। টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের উদ্যোগে এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য দেন টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সভাপতি জাফর আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক কাজী জাকেরুল মওলা, সাবেক সভাপতি মো. কামরুজ্জামান ও আতাউর রহমান খান, সহসভাপতি তুহিন খান, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক কামনাশীষ শেখর, একুশে টিভির জেলা প্রতিনিধি কাজী তাজউদ্দিন, ডিবিসি নিউজের জেলা প্রতিনিধি সোহেল তালুকদার প্রমুখ।

কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে কুড়িগ্রাম-চিলমারী সড়কে বেলা ১টার দিকে জেলার গণমাধ্যমকর্মীরা ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন করেন। কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের আয়োজনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য দেন প্রেসক্লাবের সভাপতি আহসান হাবীব, সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সফি খান, শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে গণকমিটি কলেজ মোড়ে একই দাবিতে মানববন্ধন করে। সেখানে বক্তব্য দেন আরিফুল ইসলাম, দিল্লুর রহমান, আবদুল জলিল প্রমুখ।

সৈয়দপুর

নীলফামারীর সৈয়দপুরে প্রথম আলো বন্ধুসভার উদ্যোগে দুপুরে মৌন মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। সৈয়দপুর প্রেসক্লাবের সামনে এই সমাবেশে একাত্মতা প্রকাশ করে অংশ নেন সৈয়দপুর শিল্পী সমিতি, মফস্বল সাংবাদিক ফোরামসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠনের নেতারা। প্রথম আলোর সৈয়দপুর প্রতিনিধি এম আর আলমের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি মো. জসিম উদ্দিন, সৈয়দপুর মহিলা মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক শিউলী সুলতানা, পৌরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর এরশাদ হোসেন, সৈয়দপুর শিল্পী সমিতির সভাপতি হোসনে আরা লিপি, সাধারণ সম্পাদক এম আর টুটুল, সৈয়দপুর বন্ধুসভার সভাপতি ডালিম কুমার, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, বন্ধুসভার সাবেক সভাপতি আবদুল হাফিজ, সাংবাদিক এম কে আনোয়ার, সাদিকুল ইসলাম, শাহবাজ সবুজ, জাকির হোসেন, আরমান হোসেন, রেজা মাহমুদ, সাবির আহমেদ, নওশাদ আনসারী, আলমগীর হোসেন প্রমুখ।

মেহেরপুর

দুপুরে প্রতিবাদ সভা করেছে মেহেরপুরের গাংনী প্রেসক্লাব। প্রেসক্লাবে আয়োজিত এ প্রতিবাদ সভায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকেরা অংশগ্রহণ করেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকের ওপরে এ নির্যাতনের ঘটনা দুর্নীতিবাজদের দ্বারা দেশ ধ্বংসের চক্রান্তের বহিঃপ্রকাশ মন্তব্য করেন সাংবাদিকেরা। গাংনী প্রেসক্লাব সভাপতি রমজান আলীর সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক মাজেদুল হকের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ উদ দৌলা রেজা, রাশেদুজ্জামান, আকতারুজ্জামান প্রমুখ।

ধরমপাশা

বেলা তিনটার দিকে সুনামগঞ্জের ধরমপাশা উপজেলায় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা সদরের হাসপাতাল রোডের উপজেলা প্রেসক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে এই প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি জুবায়ের পাশা, সহসভাপতি গিয়াস উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ, সাহিত্য ও সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক শাকিল আহমেদ, দপ্তর সম্পাদক সোহান আহমেদ, সদস্য সালেহ আহমদ প্রমুখ।

default-image

খুলনা

খুলনা প্রেসক্লাবের সামনে বেলা তিনটার দিকে মানববন্ধন করেছেন খুলনায় কর্মরত পেশাদার সাংবাদিকেরা। এ সময় বক্তব্য দেন খুলনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হাসান আহমেদ মোল্লা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা, দৈনিক কালের কণ্ঠের খুলনা ব্যুরো প্রধান গৌরাঙ্গ নন্দী, প্রেসক্লাবের সহসভাপতি মোস্তফা জামাল, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি মহেন্দ্র নাথ সেন, দৈনিক প্রবর্তনের সম্পাদক মোস্তফা সরোয়ার, দৈনিক খুলনাঞ্চলের সম্পাদক মিজানুর রহমান, দৈনিক কালের কণ্ঠের খুলনার নিজস্ব প্রতিবেদক কৌশিক দে, দৈনিক ইত্তেফাকের সাংবাদিক এনামুল হক, ইউএনবির সাংবাদিক দিদারুল আলম, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ অভিজিৎ পাল, খুলনা প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ বিমল সাহা, প্রথম আলো খুলনার নিজস্ব প্রতিবেদক শেখ আল-এহসান, খুলনা প্রেসক্লাবের সহসম্পাদক মাহাবুবুর রহমান, সমকালের নিজস্ব প্রতিবেদক হাসান হিমালয় প্রমুখ।

বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে খুলনা নগরের পিকচার প্যালেস মোড়ে একই দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাম গণতান্ত্রিক জোট খুলনা জেলা শাখা। ওই মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির খুলনা জেলা সমন্বয়কারী মুনীর চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য মনোজ দাশ, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) খুলনা জেলা সমন্বয়ক জনার্দন দত্ত, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির খুলনা জেলা সভাপতি মোজাম্মেল হক খান প্রমুখ।

ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ময়মনসিংহ সাংবাদিক ইউনিয়নের (এমইউজে) উদ্যোগে বিকেলে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ময়মনসিংহ সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আতাউল করিমের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মীর গোলাম মোস্তফা, ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বাবুল হোসেন, ময়মনসিংহ টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অমিত রায়, সাংবাদিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সদস্য শাহিদুল আলম, ময়মনসিংহ সাংবাদিক বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি মোশাররফ হোসেন, ময়মনসিংহ টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি শরীফুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক আবু সালেহ মো. মুসা, সাংবাদিক নেতা কাজী মোহাম্মদ মোস্তফা, বিপ্লব বসাক, রাকিবুল হাসান, কামাল হোসেন প্রমুখ।

এর আগে দুপুরে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সামনে নারী সাংবাদিক সংঘ (নাসাস) অবস্থান কর্মসূচি পালন করে। এ সময় বক্তব্য দেন নারী সাংবাদিক সংঘের আহ্বায়ক সাংবাদিক বাবলী আকন্দ, সাংস্কৃতিক কর্মী জহিরুল ধ্রুব, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আবুল কালাম আজাদ, পিসি লিটন প্রমুখ। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক তাসলিমা রত্না, রাসেল হোসেন, ওবায়দুল হক, জাহাঙ্গীর আকন্দ প্রমুখ।

default-image

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়ার সর্বস্তরের সাংবাদিকদের ব্যানারে মঙ্গলবার বিকেল চারটার দিকে কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে বঙ্গবন্ধু চত্বরে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সাংবাদিকদের এই কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করে যোগ দেন স্থানীয় সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। প্রথম আলো কুষ্টিয়া বন্ধুসভার সদস্যরাও মানববন্ধনে অংশ নেন।

কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামানের সঞ্চালনায় সেখানে বক্তব্য দেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক হাসান আলী, শরীফ বিশ্বাস, রবিউল ইসলাম, শেখ হাসান বেলাল, নাহিদ হাসান, শামীমুল হাসান, হাসিবুর রহমান, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কারশেদ আলম, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি আমিনুল ইসলাম, পরিবেশ ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব খলিলুর রহমান, কাঙাল হরিনাথ প্রেসক্লাব কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কে এম আর শাহীন প্রমুখ।

default-image

পঞ্চগড়

মঙ্গলবার বিকেলে পঞ্চগড় জেলা শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কের এক পাশে পঞ্চগড় প্রেসক্লাব ও পঞ্চগড় বন্ধুসভা মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধনে পঞ্চগড় প্রেসক্লাবের সভাপতি সফিকুল আলম, জাতীয় পাটি কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আবু সালেক, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের পঞ্চগড় সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আজহারুল ইসলাম, পঞ্চগড় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম, জেলা গণসংহতি আন্দোলনের আহ্বায়ক সাজেদুর রহমান, প্রথম আলোর পঞ্চগড় প্রতিনিধি রাজিউর রহমান, বাংলাদেশ প্রতিদিনের পঞ্চগড় প্রতিনিধি সরকার হায়দার, কালের কণ্ঠ ও ডিবিসি নিউজের পঞ্চগড় প্রতিনিধি লুৎফর রহমান, প্রথম আলো বন্ধুসভার সভাপতি রাফিদ আল শিহাব চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন।

মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে স্থানীয় সমাজকর্মী রাজিউর রহমান, সময় টিভির পঞ্চগড় প্রতিনিধি আব্দুর রহিম, মোহনা টিভির পঞ্চগড় প্রতিনিধি রওশন জামিল চৌধুরী, আরটিভির পঞ্চগড় প্রতিনিধি হারুন অর রশিদ, ঢাকা পোস্টের পঞ্চগড় প্রতিনিধি রনি মিয়াজী, দৈনিক ইনকিলাবের পঞ্চগড় প্রতিনিধি সম্রাট হোসাইন, সংবাদকর্মী রাশেদুজ্জামান, ইনসান সাগরেত, নুর হাসান, পঞ্চগড় বন্ধুসভার সাধারণ সম্পাদক নওরিন জাহান, সহসভাপতি রায়হান শরীফ, মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক তাসনুহা, সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

default-image

গাইবান্ধা

গাইবান্ধা শহরের আসাদুজ্জামান মার্কেটের সামনে বিকেল চারটা থেকে সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গাইবান্ধা বন্ধুসভার আয়োজনে এ মানববন্ধনে বন্ধুসভার সদস্যরা ছাড়াও শতাধিক ব্যবসায়ী, শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, সাংস্কৃতিক কর্মী ও সমাজকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন প্রবীণ সাংবাদিক গোবিন্দলাল দাস, দীপক কুমার পাল, আবুল খালেক, তাজুল ইসলাম, বিপ্লব ইসলাম, ফারহান শেখ, শাহ আলম ও আফরোজা লুনা, জেলা বারের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, গাইবান্ধা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আলমগীর কবির, বেসরকারি উন্নয়ন সংগঠন অবলম্বনের নির্বাহী পরিচালক প্রবীর চক্রবর্তী, জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান, গাইবান্ধা বন্ধুসভার সভাপতি মেহেদী হাসান সরকার, সাধারণ সম্পাদক মিল্লাত হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান, সদস্য অনুপা তালুকদার, প্রথম আলোর প্রতিনিধি শাহাবুল শাহীন প্রমুখ।

এর আগে দুপুরে একই স্থানে মানববন্ধন করে সচেতন নাগরিক ও সাংবাদিক সমাজ। ওই মানববন্ধনে বক্তব্য দেন ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য আমিনুল ইসলাম, সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের সদস্যসচিব জাহাঙ্গীর কবির, জেলা উদীচীর সভাপতি জহুরুল কাইয়ুম, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মারুফ, জাতীয় যুব জোটের সভাপতি সুজন প্রসাদ, কবি দেবাশীষ দাশ, নাট্য সংগঠন পদক্ষেপের সভাপতি আলাল আহম্মেদ প্রমুখ। সেখানে বক্তারা বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের দুর্নীতি আড়াল করতে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করেছেন এবং সাজানো মামলায় তাঁকে ফাঁসানো হয়েছে। বক্তারা অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

default-image

মাদারীপুর

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে মাদারীপুর শহরের লেকেরপাড়ের শহীদ কানন চত্বরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রথম আলো মাদারীপুর বন্ধুসভার আয়োজনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণি–পেশার মানুষ অংশ নেন।

মানববন্ধনে মাদারীপুরের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম খান বলেন, ‘রোজিনা ইসলামকে গ্রেপ্তারের পর থেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যে পরিমাণ আলোচনা হয়েছে, তাতে বোঝা যায় গণমাধ্যমের প্রত্যেক সাংবাদিক এক একটি প্রতিষ্ঠান। যে সাংবাদিককে নির্যাতন করা হয়েছে, তিনি কোনো ক্ষুদ্র সাংবাদিক নন। স্বাস্থ্য বিভাগ নিয়ে বড় বড় দুর্নীতির বিষয় রোজিনা ইসলাম জনগণের সামনে তুলে ধরেছেন। তাঁকে গ্রেপ্তারে আমরা নিন্দা জ্ঞাপন করছি, আমরা ঘৃণা জানাচ্ছি।’

মানববন্ধনে মাদারীপুর বন্ধুসভার সভাপতি সোহেল রানার সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন স্থানীয় দৈনিক বিশ্লেষণ পত্রিকার সম্পাদক ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম খান, সময় টেলিভিশনের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার সঞ্জয় কর্মকার, মাদারীপুর টেলিভিশন ফোরামের সভাপতি ও নিউজ টোয়েন্টিফোর টেলিভিশনের সাংবাদিক বেল্লাল রিজভী, মাদারীপুর মৈত্রী মিডিয়া সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক এস আম আরাফাত হাসান, প্রথম আলোর মাদারীপুর প্রতিনিধি অজয় কুন্ডু, আনন্দ টিভির মাদারীপুর প্রতিনিধি হারুণ-অর-রশিদ, দৈনিক গণকণ্ঠ পত্রিকার মাদারীপুর প্রতিনিধি এমদাদুল হক প্রমুখ। এ ছাড়া মাদারীপুর বন্ধুসভার সদস্যরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (জাবিসাস) অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের মুক্তি দাবি করেছেন। মঙ্গলবার সংগঠনের সভাপতি মাহাবুব আলম ও সাধারণ সম্পাদক আবির আব্দুল্লাহর নাম উল্লেখ করে দপ্তর ও প্রকাশনা সম্পাদক ওসমান গণি স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে এভাবে হেনস্তা ও গ্রেপ্তার স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য চরম হুমকি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতির খবর প্রকাশ করায় পরিকল্পিতভাবে রোজিনা ইসলামের সঙ্গে এ ঘৃণ্যতম কাজ করা হয়েছে। রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

default-image

ঝিনাইদহ

বিকেলে ঝিনাইদহ শহরের পোস্ট অফিস মোড়ে মানববন্ধনে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের মুক্তি এবং তাঁকে হেনস্তার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ঝিনাইদহের সাংবাদিকেরা। এই মানববন্ধনের আয়োজন করে ঝিনাইদহ বন্ধুসভা। এ সময় বক্তব্য দেন প্রেসক্লাবের সভাপতি একুশে টেলিভিশন ও জনকণ্ঠ পত্রিকার নিজস্ব প্রতিনিধি এম রায়হান, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও ইত্তেফাক প্রতিনিধি বিমল কুমার সাহা, ইউএনবির আমিনুর রহমান, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক আজাদ রহমান, দেশ রূপান্তরের প্রতিনিধি এম রবিউল ইসলাম, ডিবিসি নিউজের আব্দুর রহমান, ৭১ টিভির রাজীব হাসান, আমাদের কণ্ঠ পত্রিকার নিজস্ব প্রতিবেদক এম এ জলিল, সমাজকর্মী হাবিবুর রহমান, বন্ধুসভার উপদেষ্টা শাহীনূর আলম, সভাপতি সাকিব মোহাম্মদ আল হাসান, সাধারণ সম্পাদক সানজিদা আফরোজ, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আঁখি আলমগীর প্রমুখ।

ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁও পৌর শহরের চৌরাস্তায় বিকেল সাড়ে চারটার দিকে সাংবাদিক ও সচেতন নাগরিকবৃন্দের ব্যানারে প্রতিবাদী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সংবাদকর্মী ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নামে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার ও তাঁর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করা হয়। এ ছাড়া রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী, সহসভাপতি জাকির মোস্তাফিজ, সুজন ঠাকুরগাঁও জেলার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ, ডেইলি স্টারের জেলা প্রতিনিধি কামরুল ইসলাম, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক শাহিন ফেরদৌস, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাভোগ করা মমিনুর রহমান, জেলা অনলাইন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শাকিল আহমেদ, স্থানীয় অনলাইন সংবাদপত্র কান্তিকালের সম্পাদক মাহবুব হোসেন, টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আমিন সরকার, উদীচী জেলা সংসদের সহসভাপতি আহমেদ রাজু প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এ ছাড়া একই সময় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে ঠাকুরগাঁও বন্ধুসভা। ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধনে বন্ধুসভার সদস্যরা অংশ নেন।

default-image

নীলফামারী

নীলফামারীতে বিকেল চারটার দিকে শহরের বঙ্গবন্ধু চত্বরে মানববন্ধন সমাবেশ হয়েছে। নীলফামারী প্রেসক্লাব, প্রথম আলো বন্ধুসভা, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম ও সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির যৌথ উদ্যোগে ওই কর্মসূচি পালিত হয়। এ সময় বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধি ও সুধী সমাজের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

মানববন্ধন ও সমাবেশে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের জেলা শাখার সভাপতি ইসরাত জাহান সভাপতিত্ব করেন। বক্তৃতা করেন জেলা হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার ফোরামের সভাপতি মশিউর রহমান ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সারোয়ার মানিক, দৈনিক জনকণ্ঠের স্টাফ রিপোর্টার তাহমিন হক, প্রথম আলোর নীলফামারী প্রতিনিধি মীর মাহমুদুল হাসান, যমুনা টেলিভিশনের নীলফামারী প্রতিনিধি আতিয়ার রহমান, আরটিভির জেলা প্রতিনিধি হাসান রাব্বী প্রধান, দৈনিক কালের কণ্ঠ নীলফামারী প্রতিনিধি ভুবন রায় নিখিল, সাপ্তাহিক নীল চোখ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান, দৈনিক নীলফামারী বার্তার প্রকাশক ও সম্পাদক শীষ রহমান, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের জেলা শাখার সহসভাপতি মোশাররফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক নূর আলম, জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস, সাংবাদিক মর্তুজা ইসলাম, টেলিভিশন ক্যামেরা পারসন অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম আলী, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আশিক ইকবাল প্রমুখ।

বক্তারা রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়ে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের জেলা প্রেসক্লাবের সামনে বিকেল চারটার দিকে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ বন্ধুসভা আয়োজনে এ মানববন্ধনে বক্তব্য দেন সংগঠনের উপদেষ্টা মনোয়ারা খাতুন, সভাপতি ওজিফা খাতুন, সহসভাপতি মারিয়া হাসান, অর্থ সম্পাদক আলী উজ্জামান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক আনোয়ার হোসেন। এ সময় সংহতি জানিয়ে বক্তব্য দেন জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল হুদা, সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল মজিদ প্রমুখ।

এর আগে গোমস্তাপুর উপজেলার সাংবাদিকেরা বেলা ১১টার দিকে গোমস্তাপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের সামনে ঘণ্টাব্যাপী আরেকটি মানববন্ধন করেন। সেখানে বক্তব্য দেন উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আতিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহ আহমদ, নাহিদ ইসলাম, নুর মোহাম্মদ, ইয়াহিয়া খান, নুহ আলম, আবুল কালাম, সারওয়ার জাহান। মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য দেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহফুজা খাতুন, সাংস্কৃতিক সংগঠক অধ্যাপক সাদেকুল ইসলাম ও সেরাজুল ইসলাম। বক্তারা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনাটিকে অত্যন্ত ন্যক্কারজনক উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারসহ তাঁকে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান বক্তারা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনের সাংসদ হারুনুর রশীদ সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘মানুষ যখন করোনার ছোবলে জীবন হারাচ্ছেন, শ্রমজীবী ও নিম্নআয়ের মানুষের জীবন-জীবিকা যখন চরম হুমকির মুখে, তখন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চরম দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে প্রথম আলোর সাহসী সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম একের পর এক স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতির খবর প্রকাশ করে তাঁদের মুখোশ উন্মোচন করেছেন। তিনি সংবাদ অনুসন্ধান করতে গিয়ে যেভাবে নিপীড়িত হলেন, তা জাতির জন্য লজ্জাকর। রোজিনা ইসলামকে নিপীড়নের সঙ্গে যুক্ত সবার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

default-image

নারায়ণগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে বিকেলে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন। সংগঠনের সভাপতি আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আমির হুসাইনের সঞ্চালনায় এ সময় বক্তব্য দেন নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম, সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হাবিবুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন, ফতুল্লা মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতি আনিসুজ্জামান প্রমুখ।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সাবেক সভাপতি তাপস সাহা, নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি ইমামুল হাসান, যুগ্ম সম্পাদক শওকত এ সৈকত, কোষাধ্যক্ষ প্রণব কৃষ্ণ রায়, সমকালের জেলা প্রতিনিধি এম এ খান, আলোকিত বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি শরীফ সুমন, সাংবাদিক সনদ সাহা, প্রেসক্লাব নারায়ণগঞ্জের সম্পাদক ফখরুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, সাবিত আল হাসান, হাফসা আক্তার প্রমুখ।

default-image

লালমনিরহাট

লালমনিরহাট শহরের মিশন মোড় চত্বরে বেলা তিনটার দিকে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। লালমনিরহাটে কর্মরত সাংবাদিক সমাজের ব্যানারে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন প্রথম আলোর লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি আবদুর রব। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন ডেইলি ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের লালমনিরহাট ডিস্ট্রিক্ট করেসপনডেন্ট আবু হাসনাত, সময় টিভির লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি মোফাখখারুল ইসলাম, চ্যানেল আই ও আমাদের সময়ের লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি মিজানুর রহমান, ঢাকা ট্রিবিউন ও বাংলা ট্রিবিউনের লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি মোয়াজ্জেম হোসেন, ডিবিসি টিভির লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি মাজেদ মাসুদ, মাই টিভি ও ডেইলি অবজারভারের লালমনিরহাট ডিস্ট্রিক্ট করেসপনডেন্ট মাহফুজ সাজু, এসএ টিভির লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি আশিকুর রহমান, ৭১ টিভির লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি উত্তম কুমার রায়, লালমনিরহাট জেলা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক আলোর মণির নির্বাহী সম্পাদক হেলাল হোসেন কবীর প্রমুখ।

লক্ষ্মীপুর

বিকেল পাঁচটার দিকে লক্ষ্মীপুর প্রেসক্লাবের সামনে বন্ধুসভা জেলা কমিটির উদ্যোগে মানববন্ধন করা হয়েছে। এ মানববন্ধনে বন্ধুসভার সদস্যরা ছাড়াও বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদকর্মীরা অংশ নেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন লক্ষ্মীপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক, প্রথম আলোর প্রতিনিধি এ বি এম রিপন, লক্ষ্মীপুর অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি কাজল কায়েস, সাংবাদিক কামাল হোসেন, যমুনা টিভির প্রতিনিধি আনিস কবির, বন্ধুসভার জেলা সভাপতি শান্তনু দাস, সাধারণ সম্পাদক অনিম জোবায়ের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাজীব হোসেন প্রমুখ। বক্তারা বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও আটকের ঘটনা ন্যক্কারজনক। দ্রুত তাঁকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।

পটুয়াখালী

পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে বিকেল পাঁচটার দিকে পটুয়াখালী বন্ধুসভার উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। এই মানববন্ধনে পটুয়াখালীর গণমাধ্যমকর্মীরাও অংশ নেন। বন্ধুসভার সভাপতি জাহিদা আক্তারের সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য দেন পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বপন ব্যানার্জি, সহসভাপতি সোহরাব হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, বন্ধুসভার সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান, প্রথম আলোর পটুয়াখালী প্রতিনিধি শংকর দাস প্রমুখ।

বক্তারা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তিসহ যাঁরা তাঁকে হেনস্তা ও হয়রানি করেছেন, তাঁদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন