বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লবণ চাষি কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মোস্তফা কামাল চৌধুরী বলেন, দিন দিন চাষের জমি কমে যাচ্ছে। জমি অধিগ্রহণের কারণে মহেশখালীতে সাত হাজার ও মাতারবাড়ীতে তিন হাজার একর জমিতে লবণ চাষ কমে গেছে। এই মুহূর্তে লবণ আমদানির সিদ্ধান্ত নিলে চাষিরা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। স্থানীয়ভাবে লবণ উৎপাদন না হলে চাহিদার সবটুকু লবণ বিদেশ থেকে আনতে হবে। তখন উভয় দিকেই সংকট দেখা দেবে।

বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নুরুল কবির বলেন, লবণ নিয়ে যে আইন করা হয়েছে, তাতে অনেক জটিলতা আছে। আইন মানতে গিয়ে ছোট মিলগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। তাই আইনের বিধিবিধান বাস্তবায়নে শিথিল করা প্রয়োজন।
সাংসদ আশেক উল্লাহ বলেন, লবণ আমদানি করা হলে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত লবণ বিক্রি হবে না। মাঠেই পড়ে থাকবে। সরকারের চাহিদা অনুযায়ী কক্সবাজার থেকে লবণ জোগান দিতে পারলে আর আমদানির প্রয়োজন নেই।

শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানা বলেন, একটি চক্র সিন্ডিকেট করে লবণের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে। হুট করে বাড়িয়ে দেয় দাম। তাই লবণের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। মাঠপর্যায়ে গিয়ে প্রকৃত তথ্য সংগ্রহ করা হবে। সবার মতামত নিয়ে জাতীয় লবণ নীতিমালা করা হবে।

সমাপনী বক্তব্য দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাহিদ ইকবাল। লবণশিল্পের সার্বিক অবস্থা নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিসিকের (উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ) উপমহাব্যবস্থাপক সরওয়ার হাসান। স্বাগত বক্তব্য দেন কক্সবাজার বিসিকের উপমহাব্যবস্থাপক জাফর ইকবাল ভূঁইয়া।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন