বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বিশাল বড় দল। এখানে সবার স্থান আছে। জনপ্রিয় মানুষের যেমন স্থান আছে, তেমন বির্তকিত মানুষেরও স্থান আছে। সব দলের মধ্যেই সবাই থাকে। আওয়ামী লীগ একটি বিশাল জনসমুদ্র, এখানে যে টিকে থাকার সে টিকে থাকবে, যে চলে যাওয়ার সে চলে যাবে।

শেষ পর্যন্ত দলীয় সাংসদ শামীম ওসমানের সমর্থন পাবেন কি না, জানতে চাইলে আইভী বলেন, ‘উনি (শামীম ওসমান) দিলে দেবে, না দিলে না দেবে। আমাকে উনি অপছন্দ করতেই পারেন—এটা কোনো ব্যাপার না।’ তিনি বলেন, ‘আমি আমার বড় ভাইকে (শামীম ওসমান) সম্মান দেখিয়ে বহুবারই চেষ্টা করেছি। উনি যদি ওনার দায়িত্ব পালন না করেন তাহলে কিছু করার নেই। জনতা যে রায় দেবে, সেটাই রায়।’ নির্বাচনে ষড়যন্ত্র হবে কি না, জানতে চাইলে আইভী বলেন, নির্বাচন এলেই ষড়যন্ত্র হয়। তো, ষড়যন্ত্র হবেই, ধ্বংস করে দেবে জনগণ। প্রধানমন্ত্রী জানেন, নারায়ণগঞ্জের জনগণ তাঁর পাশে আছেন। সে কী করল, না করলে, তাতে কিছু যায়-আসে না।

আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জের ভোটাররা তাঁর কথা বলেন, ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা তাঁর কথা বলেন। তাঁর বিরুদ্ধে গত দিনে প্রচুর অপপ্রচার চালানো হয়েছে, বিভ্রান্ত ছড়ানো হয়েছে। ধর্মীয় ব্যাপারে উসকানি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোনোটাতেই কাজ হবে না। আগেও হয়নি, ভবিষ্যতেও হবে না।

গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইভী আরও বলেন, ‘জনপ্রতিনিধি জনগণের। গত তিনবার পাস করার পর আমি বলেছি, আমি সবার ভোটে পাস করেছি। কিন্তু আমার পরিচয় আমি আওয়ামী লীগ। আমি বংশগতভাবে আওয়ামী লীগ করি, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারী। কিন্তু আমি কাজ করব সবার জন্য। আমি যখন রাস্তা করি তখন আওয়ামী লীগ, বিএনপি দেখি না। সুতরাং আমি দলমতের ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করব। এখনো করছি, ভবিষ্যতেও করব। কিন্তু আমার পরিচিতি আমার জয় বাংলা।’

গণসংযোগকালে আইভীর সঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল কাদির, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন