এদিকে বিদ্যুৎ–সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পরপরই উপাচার্যের বাসভবন অন্ধকার হয়ে যায়। এর আগে রোববার বিকেল পৌনে পাঁচটার দিকে প্রেস ব্রিফিং করে শিক্ষার্থীরা উপাচার্য পদত্যাগ না করলে জরুরি পরিষেবা বন্ধ করার হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন। এর ঠিক আড়াই ঘণ্টার মধ্যেই বিদ্যুৎ–সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। এর পরপরই মাইকে ঘোষণা দিয়ে বিদ্যুৎ–সংযোগ বিচ্ছন্ন করার বিষয়টি জানানো হয়।

default-image

উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে বাসভবনের সামনে বসে রয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তাঁরা উপাচার্যের বাসভবনে পুলিশ সদস্য ও সংবাদকর্মী ছাড়া কাউকে প্রবেশ করতে দিচ্ছেন না।

শা‌বিপ্রবির শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সূত্রপাত ১৩ জানুয়ারি। ওই দিন রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে তাঁর পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েক শ ছাত্রী। গত শনিবার সন্ধ্যার দিকে ছাত্রলীগ হলের ছাত্রীদের ওপর হামলা চালায়।

পরদিন বিকেলে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করেন। তখন পুলিশ শিক্ষার্থীদের লাঠিপেটা ও তাঁদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে। ওই দিন রাত সাড়ে আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও হল ছাড়ার ঘোষণা দিলেও শিক্ষার্থীরা তা উপেক্ষা করে উপাচার্যের পদত্যাগ চেয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে ঢাকা, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর, খুলনা ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন