বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিমান উড্ডয়নের ছয় ঘণ্টা আগে থেকে বিমানবন্দরে স্থাপিত চারটি আরটি–পিসিআর ল্যাবে যাত্রীদের করোনা পরীক্ষা শুরু হয়। চারটি প্রতিষ্ঠান যাত্রীদের করোনা পরীক্ষার দায়িত্ব পেয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো হলো ঢাকার প্রেসক্রিপশন পয়েন্ট ও ল্যাবএইড, কুমিল্লার মর্ডান হসপিটাল প্রাইভেট লিমিটেড এবং চট্টগ্রামের শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরি।

এসব প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়কারী ও শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরির মহাব্যবস্থাপক পুলক পারিয়াল বলেন, ‘প্রথম দিন সুন্দরভাবে পরীক্ষার কাজ শেষ হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার সংযুক্ত আরব আমিরাতগামী আরও দুটি ফ্লাইট রয়েছে। আমরা দ্রুততার সঙ্গে যাত্রীদের সেবা দিতে পারছি। ফ্লাইট ও যাত্রীসংখ্যা বাড়লেও করোনা পরীক্ষায় কোনো সমস্যা হবে না।’

রোববার বিমানবন্দরে আরটি–পিসিআর ল্যাবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) আহমেদুল কবীর।

এর আগে গত ৫ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিদেশগামী যাত্রীদের করোনা পরীক্ষার জন্য চারটি বেসরকারি ল্যাবকে অনুমোদন দেওয়া হয়। বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করা হয় ১ হাজার ৬০০ টাকা। ১৮ ডিসেম্বর ল্যাব স্থাপনে অবকাঠামোর কাজ শুরু করে স্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন