সে সময় কুলসুম বেগম বলেন, কালাম ঢাকায় কাজ করতেন। সেখানে বিয়ে করেছিলেন। তাঁদের তিন ছেলে–মেয়ে। ভালোই ছিলেন কালাম। তিন বছর আগে মানসিক সমস্যা দেখা দিলে বউ–সন্তান নিয়ে অন্য জায়গায় চলে যান কালাম। এরপর কালাম আরও অসুস্থ হয়ে পড়েন। মা বলেন, সুযোগ পেলে কালাম দূরে চলে যান। এলাকার বাড়িঘরে গিয়ে মানুষজনকে মারধর করেন। এই যন্ত্রণা থেকে বাঁচতে স্বজনেরা কালামকে শিকলে বেঁধে রাখতে শুরু করেন। কাঁদতে কাঁদতে মা বলেন, ‘কখন কালাম হারায় যায়, গাড়ির নিচে পড়ে, সেই চিন্তা হয়। তাই মা হয়ে নিজেই ছেলের পায়ে শিকল দিছি।’

কালামের বাবা আবদুল গণি বলেন, ‘গরিবের সংসার। রংপুরসহ এলাকার কত ডাক্তারের কাছে ছেলের চিকিৎসা করালাম। কোনো উন্নতি নাই। প্রত্যেক মাসে ওষুধ লাগে তিন হাজার টাকার ওপরে। এই টাকাও জোগাড় করা কঠিন হয়ে পড়ছে।’

রাজাগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খাদেমুল ইসলাম বলেন, একজন যুবককে শিকলে বেঁধে রাখা হয়েছে, এটা দেখতেই খারাপ লাগে। তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য সব রকমের সহযোগিতা করার কথা জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন