default-image

শিক্ষকেরা হচ্ছেন মোমবাতির মতো। নিজে জ্বলে, অন্যকে আলোকিত করেন। শত প্রতিকূলতায়ও নিজের দুঃখ–কষ্টের কথা কাউকে জানান না। তাই জীবদ্দশায় শিক্ষকের সম্মান দেওয়া উচিত। প্রথম আলো গত ২২ বছরে শিক্ষকদের প্রতি নানাভাবে সম্মান জানিয়ে আসছে। গত বছর থেকে ঘটা করে প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা চালুর মাধ্যমে শিক্ষকের মর্যাদাকে আরেকবার জাতিকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে।

‘আইপিডিসি-প্রথম আলো প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা-২০২০’ উপলক্ষে কুমিল্লা অঞ্চলের অনলাইন সুধী সংযোগে অংশগ্রহণকারী সুধীজনেরা এসব কথা বলেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে সুধী সংযোগে নানা পেশার অন্তত ৫০ জন পেশাজীবী অংশ নেন। এবার করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা কার্যক্রমের আঞ্চলিক সুধী সমাবেশগুলো ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বিকেল চারটায় শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন প্রথম আলোর যুব কার্যক্রম ও ইভেন্টস বিভাগের প্রধান মুনির হাসান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন আইপিডিসির রিটেইল বিজনেসের আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের রিটেইল বিজনেসের হেড অব অ্যাসেটস মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘গত বছর আইপিডিসি প্রথম আলোর সঙ্গে যুক্ত হয়ে এই কাজ শুরু করেছে। আমরা শিক্ষকের মর্যাদা ও সম্মানের জন্য কাজ করছি। তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা ও ঋণ স্বীকার করছি।’

বিজ্ঞাপন
অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকে প্রিয় শিক্ষকদের কর্মযজ্ঞ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে আইপিডিসির (জাগো উচ্ছ্বাসে) কার্যক্রম নিয়েও প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়।

প্রথম আলো কুমিল্লার নিজস্ব প্রতিবেদক গাজীউল হকের সঞ্চালনায় সুধী সংযোগে যুক্ত হয়ে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ, কুমিল্লা সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মো. জামাল নাসের, বুড়িচং উপজেলার সোনার বাংলা কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম রেজা সৌরভ, নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আইনুল হক, চাঁদপুর সরকারি কলেজের দর্শন বিভাগের প্রভাষক আনিস ফারদিন, অ্যাসিড–সন্ত্রাস নির্মূল কমিটি কুমিল্লার সাধারণ সম্পাদক রোকেয়া বেগম, যাত্রী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ ফারুক সরকার, দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর মুন্সী ফজলুর রহমান সরকারি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক গোলাম কিবরিয়া খন্দকার, কুমিল্লা কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ হুমায়ুন কবীর মাসউদ, সংস্কৃতিকর্মী চন্দন দাস প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘শিক্ষক মৃত্যু পর্যন্ত শিক্ষক থেকে যান। অবসর নেওয়ার পরও তিনি সমাজ ও রাষ্ট্রকে সেবা দিয়ে যান। শিক্ষকদের অনুপ্রেরণা নিয়েই আমরা টিকে আছি।’ অধ্যক্ষ মো. জামাল নাসের তাঁর স্কুল ও কলেজজীবনের প্রিয় শিক্ষক বজলুর রহমান, মমতাজ উদ্দিন, আবদুল মান্নান ও সুবীর কুমার চক্রবর্তীর সঙ্গে থাকা খণ্ড খণ্ড স্মৃতি তুলে ধরেন। প্রিয় শিক্ষকদের সান্নিধ্য তাঁকে এখনো নস্টালজিয়ায় ভাসায় বলে তিনি মন্তব্য করেন। সেলিম রেজা সৌরভ বলেন, ‘তরুণেরা শিক্ষকতা পেশায় আসছে। এই ধরনের স্বীকৃতি, সম্মাননা মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষকতা পেশায় আনবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকে প্রিয় শিক্ষকদের কর্মযজ্ঞ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে আইপিডিসির (জাগো উচ্ছ্বাসে) কার্যক্রম নিয়েও প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়। অনুষ্ঠান আয়োজনে সহযোগিতা করেন প্রথম আলো কুমিল্লা বন্ধুসভার বন্ধুরা।
আয়োজকেরা জানান, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষককে দেওয়া হবে এ সম্মাননা। একজন মনোনয়নকারী সর্বোচ্চ তিনজন শিক্ষককে মনোনীত করতে পারবেন। মনোনয়নকারীর বয়স হতে হবে কমপক্ষে ১৮ বছর। অনলাইনে নির্দিষ্ট ফরমে আবেদন করা যাবে (www.priyoshikkhok.com) এ ওয়েব ঠিকানায়।

মন্তব্য পড়ুন 0