বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বন্য প্রাণী সংরক্ষণ বিভাগের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা দীপান্বিতা ভট্টাচার্য প্রথম আলোকে বলেন, গত শুক্রবার রাতে বন একাডেমি–সংলগ্ন বন থেকে কয়েক ব্যক্তি শিয়ালটি ধরেন। পরে রাতেই সেটিকে বেলালের দোকানে জবাই করেন তাঁরা। সকাল থেকে শিয়ালের মাংস বিক্রি করার সময় বেলালকে হাতেনাতে আটক করা হয়। তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বন বিভাগ জানায়, বন্য প্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ অনুযায়ী বন আদালতে বেলালের নামে মামলা হয়েছে। বন্য প্রাণী বিভাগের সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন বাদী হয়ে মামলা করেন। হিল ভিউ আবাসিক এলাকায় একটি পোলট্রি দোকান চালাতেন বেলাল। প্রাথমিক স্বীকারোক্তিতে আরও পাঁচজনের নাম বলেছেন তিনি। তাঁদের নাম এজাহারে উল্লেখ করা হলেও তাঁরা এখন পলাতক।
চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগের সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা নাজমুল হাসান বলেন, ‘খবর পেয়ে গিয়ে দেখি, তাঁরা দুই হাজার টাকায় প্রতি কেজি শিয়ালের মাংস বিক্রি করছেন। এ সময় বেলালকে হাতেনাতে আটক করা হয়।’

এ বিষয়ে বন্য প্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, বন একাডেমির পাহাড়ে অনেক শিয়াল রয়েছে। বেলালসহ অন্যরা সেসব শিয়াল ধরে বিক্রি করছিলেন। মানুষের ধারণা, শিয়ালের মাংস খেলে রোগ ভালো হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন