বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাসপাতালের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, মৃত্যু হওয়া পাঁচজনের কারও করোনা ছিল কি না, তা নিশ্চিত নন। বিষয়টি নিশ্চিত হতে তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।

মৃত্যু হওয়া পাঁচজনের কারও করোনা ছিল কি না, তা নিশ্চিত না। বিষয়টি নিশ্চিত হতে তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।
মো. মনিরুজ্জামান, সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) , বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

পরিচালকের কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় এই হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে নতুন ২৬ জন নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে একজন করোনা পজিটিভ। এই সময়ে চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৭ জন। যাঁদের মধ্যে দুজন করোনা পজিটিভ ছিলেন। আজ দুপুর পর্যন্ত করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন ১১৯ জন রোগী। এর মধ্যে ৩২ জনের করোনা পজিটিভ। শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে শয্যাসংখ্যা ১৫০।

বরিশাল বিভাগে দুই সপ্তাহ ধরে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের সবচেয়ে বড় এই সরকারি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডের শয্যার সংকট দেখা দিতে পারে আশঙ্কায় সম্প্রতি হাসপাতালটির ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আবদুর রাজ্জাক বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালকের কাছে বিকল্প আরেকটি করোনা হাসপাতাল প্রস্তুতের জন্য আবেদন করেছেন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে বুধবার পর্যন্ত এই হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ৫৩৭ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫০৭ জনের। যার মধ্যে ১৪৯ জন করোনা পজিটিভ ছিলেন।

বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই এই বিভাগে করোনার সংক্রমণ ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করে। ১৩ থেকে ১৯ মার্চ এই সাত দিনে বিভাগের ছয় জেলায় করোনায় আক্রান্ত হন মাত্র ৭৭ জন। কিন্তু ২০ থেকে ২৬ মার্চ পরের সাত দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২২৮, অর্থাৎ প্রায় তিন গুণ। ১৬ মার্চ থেকে ৩ এপ্রিল এই ১৯ দিনে বিভাগে আক্রান্ত হন ১ হাজার ৯৯১ জন। আর ৪ থেকে ৭ এপ্রিল এই চার দিনে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪২৪ জনের।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন