বিজ্ঞাপন

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী রিয়াজুল ইসলাম জানান, রাত সাড়ে ৮টার দিকে পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়া কাউন্সিলর প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর শওকত আলীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন উমেদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত ইসলাম ওরফে বল্টু। কবিরপুর মন্দিরের সামনে গেলে প্রতিপক্ষ এক প্রার্থীর সমর্থকেরা তাঁদের ওপর হামলা চালান। লিয়াকত ইসলামকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। এ সময় আরও একজন আহত হন। স্থানীয় লোকজন লিয়াকত ইসলামকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দ্রুত কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে রওনা হন। কিন্তু পথেই লিয়াকত ইসলাম মারা যান।
নিহত লিয়াকত ইসলামের ভাই কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত আলী সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেছেন, তাঁর ভাইকে পাঞ্জাবি প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর খান বাবুর সমর্থকেরা কুপিয়ে হত্যা করেছেন। তবে মুঠোফোন বন্ধ থাকায় আলমগীর খানের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা তাপস কুমার সরকার জানান, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই লিয়াকত ইসলাম মারা গেছেন। তাঁরা মৃত অবস্থায় তাঁকে পেয়েছেন। ধারণা করা যাচ্ছে পথেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন