বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লাকী শীল নামের এক স্কুলশিক্ষক বলেন, সকালে নগরের বাসা থেকে বের হয়ে বোয়ালখালীতে স্কুলের উদ্দেশে রওনা দেন। কিন্তু কালুরঘাট সেতুর নগর প্রান্তে এসে গাড়ি থেকে নেমে যেতে হয়। কেননা শ্রমিকদের অবরোধের কারণে সেতুর ওপর গাড়ি চলাচল বন্ধ ছিল। পরে হেঁটেই সেতু পার হন তিনি।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এই পোশাক কারখানার শ্রমিকদের প্রায় দুই মাসের বেতন-ভাতা না দিয়ে গত ১৬ মার্চ কারখানা বন্ধ করে দেয় মালিকপক্ষ। এরপর আন্দোলনে নামেন শ্রমিকেরা। ২০ মার্চ বেতন-ভাতা দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু দেওয়া হয়নি। পরে ৩ এপ্রিল বেতন-ভাতা দেওয়ার কথা বলা হয়। সে আশ্বাসও রাখেনি মালিকপক্ষ।

বিক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা আজ সকাল ৮টায় কারখানা এলাকায় জড়ো হন। তখন কারাখানার গেট বন্ধ করে রাখা হয়। পরে ১০টার দিকে শ্রমিকেরা কারখানায় ঢুকতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এরপর শ্রমিকেরা সড়ক অবরোধ করেন। থেমে থেমে বেশ কিছুক্ষণ সংঘর্ষ চলে পুলিশের সঙ্গে। এতে শ্রমিক ও পুলিশ আহত হন। তাঁদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবদুল করিম আজ বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে শ্রমিকেরা বিক্ষোভ করেছেন। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশের কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছেন। তবে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

কারখানার মালিকপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) প্রথম সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, বেতন-ভাতা না দিয়ে কারখানা বন্ধ করে দেওয়ায় শ্রমিকেরা বিক্ষোভ করেছেন। মালিকপক্ষকে খুঁজেও পাওয়া যাচ্ছে না। তবে তাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। শ্রমিকদের বেতন-ভাতার বিষয়টি সমাধান করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন