বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শোভা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের মধ্যপাড়া এলাকার প্রতিমা রানী দাসের একমাত্র সন্তান। শোভার জন্মের পাঁচ-ছয় মাস আগেই নিখোঁজ হয়ে বাবা বুলু চন্দ্র লোদ মারা যান। বাবার বাড়ি ছিল জেলার কসবা উপজেলার কুটি চৌমুহনীর মকিমপুর গ্রামে। শোভা যখন গর্ভে, তখন থেকেই মা প্রতিমার সংগ্রাম শুরু। স্বজনদের কাছ থেকে বিতাড়িত হয়ে মা-মেয়ে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেছেন। শেষ পর্যন্ত মেয়ের চিন্তা করেই দ্বিতীয় বিয়ে করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চলে আসেন প্রতিমা। কিন্তু সেখানেও ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়নি। সহ্য করতে হয় স্বামীর নিয়মিত নির্যাতন। এমন প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যেই জেএসসি ও এসএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পান শোভা।

তাঁকে পড়াতে গিয়ে মা দিনের পর দিন কাজ করেছেন। আচারের এক হাজার প্যাকেট বানালে ৩০ টাকা, এক কেজির চকলেট বানালে ১ টাকা করে পেতেন। শোভাও মাঝেমধ্যে এ কাজে সহায়তা করতেন।

কিন্তু এসএসসি ফলাফল প্রকাশের দিনই সৎবাবা শোভাকে ঘর থেকে বের করে দেন। নিয়াজ মুহাম্মদ উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলামের কাছ থেকে এসব জানতে পেরে এগিয়ে আসে প্রথম আলো। অদম্য মেধায় বিবেচনায় শোভা প্রথম আলো ট্রাস্টের বৃত্তির জন্য মনোনীত হন। একাদশ শ্রেণিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজে ভর্তিতে সহায়তা করেন সহযোগী অধ্যাপক হামজা মাহমুদ ও বই-খাতা-কমল দেন বন্ধুসভার সদস্যরা।

এসএসসির পদার্থবিজ্ঞান পরীক্ষার আগের দিন রাতে মায়ের সঙ্গে ঝগড়া লেগে সৎবাবা শোভাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। রাতভর শোভা কিছুই পড়তে পারেননি। কিন্তু এই পদার্থবিজ্ঞান পরীক্ষায় শোভা ৯৮ নম্বর পান। এসএসসিতে গণিতে ৯৯, রসায়ন ও উচ্চতর গণিতে ৯৮ নম্বর করে পেয়েছেন শোভা। এসএসসিতে প্রতি বিষয়ে তাঁর গড় নম্বর ৯৮ দশমিক ৯১।

শোভা রানী প্রথম আলোকে বলেন, ‘মা নিরুপায় হয়ে আমার চিন্তা করেই তখন বিয়ে করেন। কিন্তু লোকটি মাদকাসক্ত ছিলেন। এমন কোনো নির্যাতন নেই, লোকটি করেননি। তবু আমি তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। কারণ, তিনি আমাকে আশ্রয় দিয়েছেন।’
পড়াশোনা করার সংগ্রাম নিয়ে শোভা বলেন, তাঁকে পড়াতে গিয়ে মা দিনের পর দিন কাজ করেছেন। আচারের এক হাজার প্যাকেট বানালে ৩০ টাকা, এক কেজির চকলেট বানালে ১ টাকা করে পেতেন। শোভাও মাঝেমধ্যে এ কাজে সহায়তা করতেন। সপ্তম শ্রেণিতে টিউশনি শুরু করেন। এতে যা আসত, তা দিয়েই পড়াশোনা ও মা-মেয়ে চলতেন।

শোভা বলেন, নবম শ্রেণিতে পড়াশোনা বন্ধই করে দিতে চেয়েছিলেন। স্থানীয় অক্সফোর্ড কোচিং সেন্টারের শিক্ষকেরা সহায়তা করেন, অনুপ্রেরণা দেন। এসএসসি পর্যন্ত তাঁরা বিনা পয়সায় পড়িয়েছেন। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে উঠে কেন্দ্রবিন্দু একাডেমিক কেয়ার বিনা মূল্যে পড়িয়েছে। পাশাপাশি প্রতি মাসে তিন হাজার টাকা দিয়েছে। সৌভাগ্যক্রমে পেয়ে যান ব্র্যাক ব্যাংক-প্রথম আলো ট্রাস্ট অদম্য মেধাবী শিক্ষাবৃত্তি। এসবেই পড়াশোনা, মেসের ভাড়া, খাওয়া ও মায়ের চিকিৎসা করেছেন। অনেক অনিশ্চয়তা ও প্রতিকূলতা অতিক্রম করে এসেছেন। অনেকবার ভেঙে পড়েছিলেন। তবু পড়াশোনা চালিয়ে গেছেন। হাল ছাড়েননি। ধৈর্য তাঁর মূল শক্তি ছিল।

এরপর শোভা ঘুড্ডি ফাউন্ডেশনের একটি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে বৃত্তি পান। সেই বৃত্তি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোচিং ও হোস্টেলে থাকার ব্যবস্থা বিনা মূল্যে ছিল। পরে মানুষ মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পরীক্ষার ফরম পূরণ ও যাতায়াত খরচের বৃত্তি পান।

শোভা প্রথম আলো ট্রাস্ট ও বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষকসহ তাঁকে সহায়তায় এগিয়ে আসা সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘বুয়েটে পড়ার স্বপ্ন বাস্তবে রূপ পাচ্ছে। প্রকৌশলী হয়ে আরও শোভাদের পাশে দাঁড়াতে চাই। আমার জীবনের লক্ষ্য, আমি মানুষ হতে চাই।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন