বিজ্ঞাপন

দেওয়ানবাড়ি ঘাটগামী কর্ণফুলী-৪ লঞ্চে দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্য মো. জসিম উদ্দিন বলেন, লঞ্চে প্রবেশকালে যাত্রীদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার ও মাস্ক পরে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ডেকে বসার কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু যাত্রীরা সেটি মানছেন না।
ঝালকাঠিগামী সুন্দরবন-১ লঞ্চের কর্মচারী সারোয়ার হোসেন বলেন, যাত্রীরা যাতে গাদাগাদি করে ডেকে না বসেন, সে জন্য তাঁদের সতর্ক করা হচ্ছে। এ ছাড়া যাত্রীদের মাস্ক পরার জন্য তাগিদ দেওয়া হচ্ছে।

default-image

অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল সংস্থার সদস্য ও গাজী লঞ্চের পরিচালক বাবু গাজী বলেন, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ চলাচল করছে। লঞ্চে প্রবেশকালে যাত্রীদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার ও মাস্ক পরার কথা বলা হচ্ছে। এ ছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ডেকে বসার জন্য মাইকিং করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, যাত্রী ও কর্মচারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য প্রতিটি লঞ্চে স্যানিটাইজেশন করা হচ্ছে।

ঢাকা নদীবন্দর সূত্রে জানা গেছে, সোমবার ভোর ৬টা থেকে বেলা দুইটা পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চল থেকে সদরঘাট টার্মিনালে লঞ্চে এসেছে ১৩টি এবং সকাল থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ছেড়ে গেছে ৩৭টি লঞ্চ।

নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক জয়নাল আবেদীন বলেন, লঞ্চে যাত্রী বেশি হওয়ার কারণে ইলিশা রুটের এমভি দোয়েল পাখি লঞ্চ নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা আগে ঢাকা নদীবন্দর ত্যাগ করানো হয়েছে। লঞ্চমালিক, নৌ পুলিশ, বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তারা সমন্বয় করে প্রতিটি লঞ্চে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি নজরদারি করছেন। যেসব লঞ্চ স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করবে, সেসব লঞ্চের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

ঘূর্ণিঝড় ইয়াস নিয়ে সতর্কতা

ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আঘাত হানার আশঙ্কায় ঢাকা নদীবন্দরসহ সারা দেশে চলাচলকারী যাত্রীবাহী নৌযানগুলোকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার জন্য সতর্ক করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

ঢাকা নদীবন্দর সূত্রে জানা গেছে, বিআইডব্লিউটিএর পক্ষ থেকে ঢাকা নদীবন্দর থেকে দক্ষিণাঞ্চলে চলাচলকারী সব যাত্রীবাহী নৌযানগুলোকে চিঠি দিয়ে সতর্ক করা হচ্ছে। এ সময় যাত্রীবাহী নৌযানগুলোকে নিরাপদ আশ্রয় গ্রহণ করার জন্য লঞ্চমালিক ও কর্মচারীদের সতর্ক করা হয়েছে। এ ছাড়া আবহাওয়া অধিদপ্তরের সংকেত মেনে নৌযান চলাচল করতে বলা হয়েছে।

নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক জয়নাল আবেদীন বলেন, ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আঘাত হানার আশঙ্কায় প্রতিটি লঞ্চের মালিক, মাস্টার ও চালককে চিঠি দেওয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ে নৌযানের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন