default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে একটি পরিবহনের টিকিট কাউন্টারের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ঢাকা-সিলেট ও কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল বিশ্বরোড মোড়ে আজ শনিবার রাত আটটার দিকে প্রায় আধা ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষের ফলে দুটি মহাসড়কে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সংঘর্ষে জড়িত দুটি পক্ষের লোকজনই সরাইল উপজেলা সদরের দক্ষিণ কুট্টাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। এক পক্ষের নেতৃত্বে রয়েছেন দক্ষিণ কুট্টাপাড়া গ্রামের হোসেন মিয়ার ছেলে মোরশেদ মিয়া (৪০), অপর পক্ষের নেতৃত্বে রয়েছেন সুলতান মিয়ার ছেলে আপেল মিয়া (৩৫)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহর থেকে ঢাকাগামী রয়েল পরিবহনের বিশ্বরোড মোড়ে পাশাপাশি দুটি কাউন্টার রয়েছে। কাউন্টার পরিচালনা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে কয়েক দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এর জের ধরে শনিবার রাত আটটার দিকে মোরশেদের নেতৃত্বে তাঁর লোকজন আপেলের পক্ষের আরব আলীর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। এ সময় আরব আলীকে মারধরও করা হয়। আরব আলীকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুপক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

এ ঘটনার জের ধরে কিছুক্ষণের মধ্যে উভয় পক্ষের লোকজন ঢাকা-সিলেট ও কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল বিশ্বরোড মোড়ে দা, বল্লম, লাঠিসোঁটা ও ইট–পাটকেল নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে তিনটি মহাসড়কে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। মহাসড়ক দুটিতে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। মহাসড়কের ওপর আধা ঘণ্টা চলে সংঘর্ষ।

সরাইল থানার পুলিশ ও বিশ্বরোড মোড় হাইওয়ে থানার পুলিশ রাত সাড়ে আটটার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। রাত নয়টার দিকে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হলেও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচলে দীর্ঘ জটের সৃষ্টি হয়। ওই সড়কে যান চলাচল শুরু হলেও ধীরগতিতে চলছে সব যান।

বিশ্বরোড মোড় খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গাজী শাখাওয়াত হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, বর্তমানে মহাসড়ক দুটিতে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন