বিজ্ঞাপন

সমাবেশে বক্তারা বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে প্রায় ছয় ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা করে সাজানো মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়ে দুর্নীতিবাজ ব্যক্তিরা দেশের স্বাধীন সাংবাদিকতাকে কফিনে পাঠাতে উদ্যত হয়েছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে তথ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে, যাতে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সংবাদ পরিবেশন করা না হয়। এভাবে সংবাদপত্রের টুঁটি চেপে ধরা হচ্ছে। এ অবস্থার পরিবর্তন না হলে সংবাদমাধ্যমের ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে। কিন্তু আজ দেশের সব গণমাধ্যমকর্মী ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নেমেছেন। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গণগ্রেপ্তারের জন্য সাংবাদিকেরা আবেদন নিয়ে যাচ্ছেন। আগামী রোববার যদি রোজিনা ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়া না হয়, তাহলে পটুয়াখালীর সাংবাদিকেরাও স্বেচ্ছায় কারাবরণসহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবেন।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বপন ব্যানার্জি, সাবেক সভাপতি মো. গোলাম কিবরিয়া, সহসভাপতি মো. সোহরাব হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুফতি সালাহউদ্দিন, সাংবাদিক মুজাহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন