বিজ্ঞাপন

আবদুল মালেক দেওয়ান বলেন, ‘প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিসম্পন্ন একজন সাংবাদিক। পেশাগত জীবনে সাহসের সঙ্গে তিনি দুর্নীতি, অনিয়ম ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের খবর তুলে ধরে আসছেন। দেশ ও জাতির জন্য এসব তথ্যপূর্ণ প্রতিবেদন করে তিনি জাতীয় হিরোতে পরিণত হয়েছেন। তাঁর মতো একজন সাংবাদিককে রাষ্ট্রের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয়ে আটকে রেখে নির্যাতন করার ঘটনা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। শুধু নির্যাতন নয়; জামিনযোগ্য একটি মামলায় একজন নারী সাংবাদিক ও একজন মা হিসেবে একাধিকবার শুনানির পরও জামিন না দেওয়া চরম ন্যক্কারজনক।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি মনে করি, সাংবাদিক রোজিনা কেবল একজন ব্যক্তি নন; আজকে তিনি পুরো জাতির গণমাধ্যমের চেহারা হিসেবে দাঁড়িয়েছেন। তাঁকে হেনস্তা করা, কণ্ঠরোধ করা মানে গণমাধ্যমকে হেনস্তা ও কণ্ঠরোধ করার শামিল।’

আবদুল মালেক দেওয়ান বলেন, ‘সাংবাদিকতা কোনো অপরাধ নয়। রোজিনা সচিবালয়ে সাংবাদিকতা করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে কতিপয় দুর্নীতিবাজ মানুষ আটকে রেখে নির্যাতন করেছেন। রোজিনার মতো সাংবাদিকেরা জাতীয় সম্পদ। তাঁর মতো একজন মানুষের মুক্তির জন্য অনশন নয়, জীবন দিতেই প্রস্তুত রয়েছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন