দুদক সূত্র জানায়, জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের সত্যতা পেয়ে দুদকের সহকারী পরিচালক ফারুক আহমেদ ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে নূর আফরোজ বেগমের বিরুদ্ধে মামলা করেন। দুদক জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের তৎকালীন উপপরিচালক আনোয়ারুল হক এই মামলার তদন্ত করেন। তদন্ত শেষে তাঁর বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন এবং সম্পদের তথ্য গোপন করায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন আনোয়ারুল হক।

অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়, নূর আফরোজ বেগম ২৮ লাখ ১৭ হাজার ১৮৪ টাকার সম্পদের কথা গোপন করে মিথ্যা তথ্য প্রদান করেছেন এবং ৫৩ লাখ ২২ হাজার ৭৯০ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেছেন। ২০১৭ সালে এই মামলার বিচারকাজ শুরু হয়।

দুদকের আইনজীবী আবুল কালাম আজাদ বলেন, গতকাল মামলার যুক্তিতর্ক শুনানির দিন ধার্য ছিল। এ সময় নূর আফরোজ বেগমের আইনজীবী সময় প্রার্থনা করেন। কিন্তু আদালত সময় আবেদন নামঞ্জুর করে তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন