সাজাপ্রাপ্ত আসামি মানিক হোসেন রাজশাহী চারঘাটের ঝিকরা এলাকার বাসিন্দা।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, মানিক হোসেন ছয় বছর আগে বিয়ে করেন। বিয়ের পর স্ত্রী জানতে পারেন, তাঁর স্বামীর সঙ্গে অন্য নারীদের সম্পর্ক আছে। এ ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগও আছে। এসব নিয়ে তাঁদের সম্পর্কে টানাপোড়েন শুরু হয়। পরে ২০১৫ সালের ১৮ আগস্ট স্ত্রী নিজেই মানিককে তালাক দেন। এরপর দাম্পত্য জীবনের বিভিন্ন সময়ে কৌশলে ধারণ করা অশ্লীল ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন মানিক।

এই হুমকি পেয়ে তখন মানিকের সাবেক স্ত্রী থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। ২০১৬ সালে সাবেক স্ত্রী জানতে পারেন, ধারণ করা ভিডিও মানিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন। পরে ওই বছর ২১ জানুয়ারি রাজশাহী চারঘাট মডেল থানায় তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে মামলা করেন তিনি।

রাজশাহী সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) ইসমত আরা বলেন, দাম্পত্য জীবনে কৌশলে ধারণ করা ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ায় সাবেক স্ত্রী মামলা করেছিলেন। তাঁর করা সেসব অভিযোগ বিজ্ঞ আদালতে প্রমাণ হয়েছে। সাজাপ্রাপ্ত আসামি মানিককে দোষী সাব্যস্ত করে বিজ্ঞ আদালত ১০ বছরের সাজা দিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন