বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রেজাউল করিমের দলীয় মনোনয়নের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় দলীয় মনোনয়নের জন্য আটজন নেতার নাম সুপারিশ করে তালিকা পাঠানো হয়েছিল কেন্দ্রের কাছে। সেই তালিকায় রেজাউল করিমের নাম ছিল না।

সারিয়াকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান মুহম্মদ মুনজিল আলী সরকারের মৃত্যুতে চেয়ারম্যান পদ শূন্য হয়। আগামী ২ নভেম্বর এখানে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন পেলেন যাঁরা

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সভায় বগুড়ার সোনাতলা পৌরসভা এবং দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠেয় শিবগঞ্জ ও শেরপুর উপজেলার ২০টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত তালিকায় এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। পৌরসভা ও ইউপিতে নতুন মুখ কম, বেশির ভাগ প্রার্থীই গতবারেও দলীয় মনোনয়নে নির্বাচন করেছেন।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সোনাতলা পৌরসভায় মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন শাহিদুল বারী খান। শাহিদুল বারী গতবারও নৌকা প্রতীক পেয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের কাছে হেরেছিলেন।

অন্যদিকে শিবগঞ্জ উপজেলায় ১১টি ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন শিবগঞ্জ সদরে শহিদুল ইসলাম, আটমুল ইউনিয়নে মিজানুর রহমান, বিহারে মহিদুল ইসলাম, বুড়িগঞ্জে রেজাউল করিম, দেউলিতে জাহেদুল ইসলাম, কিচকে এ বি এম নাজমুল কাদির চৌধুরী, ময়দানহাটায় এস এম রূপম, মাঝিহট্টর আবদুল গফুর মণ্ডল, রায়নগরে শাহজাহান কাজী ও সৈয়দপুরে মাহতাব উদ্দিন।

শেরপুর উপজেলার ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন ভবানীপুরে আবুল কালাম আজাদ, বিশালপুরে শাহজাহান আলী, খামারকান্দিতে আবদুল মোমিন, খানপুরে পরিমল দত্ত, কুসুম্বিতে শেখ মো. জুলফিকার আলী, মির্জাপুরে মোহাম্মদ আলী, শাহ বন্দেগী ইউপিতে আবু তালেব আকন্দ, সীমাবাড়িতে গৌর দাস রায় চৌধুরী ও সুঘাট ইউনিয়নে মো. মনিরুজ্জামান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন