জেলা বিএনপির সদস্যসচিব মামুন মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, বিএনপির রাজনীতি করলেও ‘আওয়ামী লীগের দালাল বহিরাগত সন্ত্রাসীরা’ সম্মেলন বানচাল করতে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে। এতে বিএনপির ১০ নেতা–কর্মী আহত হয়েছেন।

ইকবাল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, তাঁদের সম্মেলনে দাওয়াত দেওয়া হয়নি। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে বিষয়টি জানাবেন বলে সেখানে তাঁরা উপস্থিত হন। এ সময় মামুন মাহমুদের অনুসারী থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক রিয়াজুলের নেতৃত্বে তাঁদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম বলেন, দলের ভেতরে থাকা মুখোশধারী দুষ্কৃতকারীরা হামলা চালিয়েছে। সম্মেলনটি স্থগিত করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বিএনপির সম্মেলনে সাবেক সাংসদ গিয়াস উদ্দিন ও জেলা বিএনপির মনিরুল ইসলামের পক্ষের মধ্যে মারামারি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়েছে। এই ঘটনায় কেউ থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন