সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক ওমর ফারুক বলেন, গতকাল মঙ্গলবার যখন তিনি এই সড়ক হয়ে গাড়ি নিয়ে যান, তখন পায়ের গোড়ালিসমান পানি ছিল। ফলে গাড়ি নিয়ে যেতে তেমন সমস্যা হয়নি। কিন্তু আজ দুপুরের দিকে একই সড়ক দিয়ে তিনি গাড়ি নিয়ে যেতে পারছেন না। সড়কে বন্যার পানি অনেক বেড়ে গেছে।

ফেঞ্চুগঞ্জ সেতুর টোল প্লাজা সামনেও হাঁটুসমান পানি দেখা যায়। টোল প্লাজার নিরাপত্তাপ্রহরী শিপু আহমেদ বলেন, আজ সকাল আটটার দিকেও সেখানে পানি ছিল অনেক কম। কিন্তু দুপুর ১২টা নাগাদ এ এলাকায় বন্যার পানি অনেকটা বেড়েছে। কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে পানি ৬ থেকে ৭ ইঞ্চি বেড়েছে বলে জানান তিনি।

পশ্চিম বাজারসংলগ্ন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে প্রায় হাঁটুসমান পানি দেখা যায়। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা কমান্ড কার্যালয়েও পানি ঢুকেছে। সহকারী প্রকৌশলীর কার্যালয় (জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল), উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় ও জেলা পরিষদ ডাকবাংলোর সামনে হাঁটুপানি দেখা যায়।

পশ্চিম বাজার হয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাওয়ার যে সড়ক, সেখানেও হাঁটুপানি দেখা যায়। এতে দুর্ভোগে পড়েন রোগী ও তাঁদের স্বজনেরা। এ অবস্থায় কেউ পানি মাড়িয়েই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাচ্ছিলেন।

তাহমিনা আক্তার নামের এক নারী তাঁর অসুস্থ মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছিলেন। তিনি বলেন, আজ সকালে তিনি যখন মেয়েকে নিয়ে আসেন, তখন এত পানি ছিল না। কিন্তু ফেরার পথে দেখেন, সড়কের পানি অনেক বেড়ে গেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন