বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২১ অক্টোবর কলেজের অভ্যন্তরে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আরিফুল ইসলাম ছুরিকাঘাতে খুন হয়েছিলেন। এ ঘটনায় তাঁর চাচা শফিুকল ইসলাম বাদী হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা পাঁচ-সাতজনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে সুজ্ঞান চাকমা জানান, মামলার মূল অভিযুক্ত শামসুদ্দোহা সাদী প্রাথমিকভাবে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। নিহত আরিফুল ও শামসুদ্দোহা সাদী ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত থাকলেও হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি রাজনৈতিক ছিল না বলে জানিয়েছেন শামসুদ্দোহা সাদী। অভিযুক্ত প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বলেছেন, ‘সিনিয়র-জুনিয়র’ বিরোধের জের ধরে ছুরিকাঘাতের ঘটনা ঘটেছে এবং এতেই আরিফুলের মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশনায় আরিফুল হত্যা মামলার তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছে সিআইডি। ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারেও অভিযান চলছে। এদিকে আরিফুল হত্যার ঘটনার পর থেকে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত কলেজে পাঠদান বন্ধ ছিল। ঘটনার মূল অভিযুক্ত শামসুদ্দোহা গ্রেপ্তারের পর গতকাল কলেজে আবার পাঠদান শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ মো. শামছুল ইসলাম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন