সুন্দরবন থেকে আগে ১ এপ্রিল মধু সংগ্রহ শুরু হতো। জেলেরা মধু চুরি করে নিয়ে যাওয়ায় ও খলিশা ফুল আগে আসায় মধু সংগ্রহের সময় এগিয়ে আনা হয়েছে।

১৮৮৬ সাল থেকে সুন্দরবনের সাতক্ষীরা রেঞ্জে অনুষ্ঠান করে প্রতিবছর ১ এপ্রিল মধু সংগ্রহ শুরু হয়। সুন্দরবন থেকে যাঁরা মধু সংগ্রহ করেন, তাঁদের মৌয়াল বলে।

পশ্চিম সুন্দরবনের সাতক্ষীরা রেঞ্জ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাট জেলায় সুন্দরবন অবস্থিত হলেও মূলত মধু পাওয়া যায় সাতক্ষীরা রেঞ্জে। এ জন্য প্রতিবছর ১ এপ্রিল মধু সংগ্রহ শুরু হয়ে চলত ৩০ জুন পর্যন্ত। ২০২১ সালের মধু ও মোম আহরণের জন্য ১ হাজার ১২টি অনুমতিপত্র (পাস) দেওয়া হয়। এসব অনুমতিপত্রের বিপরীতে ৬ হাজার ৭৯৭ জন মৌয়াল সুন্দরবনে যান। তাঁরা ৩ হাজার ৩৭৬ দশমিক ৯০ টন মধু ও ১১৩ দশমিক শূন্য ৯ টন মোম আহরণ করেন। আর মধু থেকে ২৫ লাখ ৬৪ হাজার ৩৬৩ টাকা ও মোম থেকে ১০ লাখ ২৫ হাজার ৮৫০ টাকা রাজস্ব আসে।

সাতক্ষীরা রেঞ্জ কার্যালয় সূত্র আরও জানায়, মূলত মৌয়ালদের অভিযোগ ও বন বিভাগের সিদ্ধান্তে মধু সংগ্রহের সময় ১৫ দিন এগিয়ে ১৫ মার্চ করা হয়েছে। দেখা যায়, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে খলিশা ফুলের মধু আগের চেয়ে ১৫-২০ দিন আগেই সংগ্রহ করার উপযুক্ত হয়। মাছ ধরার অনুমতি নিয়ে মার্চের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে জেলেরা মধু চুরি করে নিয়ে যান। ফলে মৌয়ালরা অনুমতি নিয়ে প্রত্যাশিত মধু সংগ্রহ করতে পারেন না।

এ বিষয়ে সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের বন কর্মকর্তা আবু নাসের মোহসিন হোসেন মুঠোফোনে বলেন, বেশ কয়েক বছর ধরে খলিশা ফুল আগে আসছে। ফলে মধুও আগে পাওয়া যাচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলেও এটা হতে পারে। সব দিক বিবেচনা করে মধু সংগ্রহ শুরুর তারিখ ১৫ মার্চ নির্ধারণ করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন