বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি সোহাগী ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, এখানকার বৃ-কাঁঠালিয়া, সোহাগীপাড়া, বগাপোতা, মুক্তাপুর, ভালকাপুর, খানপুর, হাটুলিয়া, দড়ি-বৃসহ বেশ কিছু গ্রামে তৈরি হচ্ছে চাটাই। গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই চলছে চাটাই তৈরির ব্যস্ততা। সেই বেত দিয়ে বাড়ির গৃহবধূরা চাটাই বুনছেন।

দড়ি-বৃ গ্রামের মো. আবদুর রাশিদ জানালেন, চাটাই তৈরির মূল উপকরণ হচ্ছে বাঁশ। এখানকার প্রতিটি বাড়ির পাশেই একাধিক বাঁশঝাড় রয়েছে। এসব বাঁশ দিয়েই তাঁরা চাটাই তৈরি করেন। এরপর সেই চাটাই বিক্রির জন্য নিয়ে যাওয়া হয় সোহাগী বাজারে। সেখান থেকে ছাটাই ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। সপ্তাহের প্রতি রোববার ও বৃহস্পতিবার সোহাগীতে চাটাইয়ের হাট বসে।

default-image

সোহাগী বাজারের ৭৫ বছর বয়সী মধু চৌহান ৩০ বছর ধরে চাটাইয়ের ব্যবসা করছেন। তিনি বলেন, তিনি যখন ব্যবসা শুরু করেছেন, তখন ট্রেন ও ট্রাকযোগে সারা দেশে চাটাই পাঠাতেন। তবে এখন তিনি মূলত ভৈরব, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ঢাকা, ঝালকাঠি, চট্টগ্রামসহ আরও কিছু জেলায় চাটাই বিক্রি করেন। নির্মাণশিল্পের সাটারিংসহ নানাকাজে এসব চাটাই ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ক্রেতারা ফোনে তাঁকে পরিমাণ, পরিমাপ ও চাহিদার কথা জানিয়ে দেন। তিনি চাহিদা মোতাবেক হাট থেকে চাটাই কিনে সেগুলো বাঁধাই করে ট্রেনযোগে গন্তব্যে পাঠিয়ে দেন।

মধু চৌহানের মতো অনেকেই চাটাই কেনাবেচা, আবার কেউ চাটাই তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করেন। আবার ইউনিয়নের অনেকে মূল পেশার বাইরে অবসর সময়ে চাটাই তৈরি করেন।
বগাপোতা গ্রামের মো. হাছেন আলী জানান, কৃষিকাজ তাঁর মূল পেশা। তবে অবসর সময়ে তিনি বাড়িতে চাটাই তৈরি করেন। বাড়তি এ কাজে তাঁর প্রতিদিন গড়ে ৫০০ টাকা আয় হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন