default-image

শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া গ্রামে আমেনা বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় তার স্বামী নজরুল ইসলামসহ পাঁচ ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ডামুড্যা থানায় মামলাটি করেন ওই গৃহবধূর ভাই মো. আসলাম উদ্দিন মাদবর। মামলার পর নজরুলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে নেওয়া হলে তিনি হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। মামলায় আমেনার স্বামী ছাড়াও অপর আসামিরা হলেন ননদ মাজেদা আক্তার, শাহানা আক্তার, দেবর সজল মাতুব্বর ও দেবরের স্ত্রী রাজিয়া বেগম।

মামলার এজাহার ও ডামুড্যা থানা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গঙ্গেশকাঠি গ্রামের মৃত আবদুল আজিজ মাদবরের মেয়ে আমেনা বেগম। তাঁর স্বামী পাশের গ্রামের নজরুল ইসলাম। নজরুল মালয়েশিয়া প্রবাসী ছিলেন। ছয় মাস আগে দেশে ফিরে আসেন। ফেরার পর তাঁদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। প্রায়ই ঝগড়া হতো। গতকাল মঙ্গলবার সকালে নজরুল তাঁর স্ত্রী আমেনাকে বসতঘরে আটকে কুঠার দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন। এরপর লাশের পাশ থেকে ফেসবুক লাইভে যুক্ত হন তিনি।

নজরুলের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে গোসাইরহাট সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভির আহম্মেদ বলেন, পরকীয়ার জেরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ চলছিল। এ কারণে হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে। নজরুল আদালতে স্বীকারোক্তি দেওয়ার পর তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়। আর ডামুড্যা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এমারত হোসেন বলেন, মামলার অপর আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন