বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিল্লাল হোসেনের বাড়ি টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার জোড়দিঘী গ্রামে। আর নিহত ফাতেমা খাতুনের (২৩) বাড়ি জামালপুরের ঘোড়ধাপ গ্রামে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে ভালোবেসে বিয়ে করেন দুজন। তাঁরা দুজনই পেশায় নার্স ছিলেন। এক বছর ধরে উখিয়া সদরের জামতলী এলাকার একটি ভাড়া বাসায় থেকে পার্শ্ববর্তী এমএসএফ হাসপাতালে চাকরি করতেন তাঁরা।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহমেদ সঞ্জুর মোর্শেদ প্রথম আলোকে বলেন, ৯৯৯-এর মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ওই রাতে বিল্লালের ভাড়া বাসায় যায় এবং বাথরুম থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় ফাতেমার লাশ উদ্ধার করে। কিন্তু লাশ দেখে মনে হয়নি ফাতেমা আত্মহত্যা করেছেন। তা ছাড়া আশপাশে অনুসন্ধান চালিয়ে জানা গেছে, বিল্লালের সঙ্গে ফাতেমার দাম্পত্য জীবন সুখের ছিল না। প্রায় সময় দুজনের মধ্যে ঝগড়াঝাটি, মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় স্বামী বিল্লালকে আটক করে থানায় আনা হয়। সেখানে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে বিল্লাল হোসেন স্বীকার করেন, স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর নিজেই রশি দিয়ে বেঁধে সেই লাশ বাথরুমে ঝুলিয়ে রাখেন এবং নিজেকে বাঁচানোর জন্য ৯৯৯-এর ফোন দেন। আদালতেও বিষয়টি স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি।

আহমেদ সঞ্জুর মোর্শেদ জানান, গতকাল কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে নিহত ফাতেমা খাতুনের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করে লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। গতকাল রাতেই লাশ নিয়ে গ্রামের বাড়িতে রওনা দেন স্বজনেরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন