বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মিলন মণ্ডলের এমন বক্তব্যে ভোটারদের মধ্যে ভীতি সৃষ্টি হয়েছে। অনেকে এমন বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন। সেখানে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বলছেন, মিলন মণ্ডল নির্বাচনী আচারণবিধি লঙ্ঘন করেছেন। নৌকায় ভোট না দিলে তিনি ভোটারদের এলাকা ছাড়ার হুমকি দিয়েছেন।

হরিপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এম সম্পা মাহমুদ। সেখানে চেয়ারম্যান পদে তাঁরই দেবর সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তাক হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুর রশিদ, দুজন সাংবাদিক হাসান আলী ও হাসিবুর রহমান চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৫ জানুয়ারি হরিপুরসহ সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ হবে।

নির্বাচনে সম্পা মাহমুদকে জয়ী করতে প্রতিদিন বিভিন্ন পথসভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাঁর পক্ষে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মিলন মণ্ডল সভা-সমাবেশে বক্তব্য দিচ্ছেন। বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের উদ্দেশে মিলন মণ্ডল বলেন, ‘আপনারা যারা নৌকার বিরোধিতা করছেন, এখনো সুন্দরভাবে হরিপুরে বসবাস করছেন, শান্তিতে আছেন, এটা আপনাদের ভাগ্যের বিষয়। কারণ, আওয়ামী লীগ অত্যাচারে বিশ্বাসী নয়। আপনাদের দেওয়ার কোনো ক্ষমতা নেই, তাই আপনারা নৌকা নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসবেন না। আওয়ামী লীগের রক্তের সঙ্গে কেউ বেইমানি করবেন না। আমি বলছি, আপনাদের ভোটে দাঁড়ানো ঠিক হয় নাই। আপনারা সুবিধা নেবেন আর ধোঁকা দিয়ে জনগণের ভোট নিবেন। যারা নৌকার প্রার্থীর বিপক্ষে ভোট করছে, মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে, তাদের ফিরে আসতে হবে। ফিরে না আসার কোনো সুযোগ নাই।’

default-image

মিলন মণ্ডল বলেন, ‘হরিপুরবাসীকে বলতে চাই, ৫ তারিখে ভোট শেষ হয়ে যাবে, কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার শেষ হবে না। আমরা কিন্তু প্রত্যেকটি মানুষকে চিহ্নিত করব, কারা কারা নৌকার বিপক্ষে ভোট করেছেন।’ তিনি বলেন, ‘আমি সাধারণ মানুষের উদ্দেশে বলতে চাই, আপনারা নৌকার বাইরে আগ বাড়িয়ে কোনোরকম রং কিংবা সিঁদুর নিতে যাবেন না। আপনাদের কেউ রক্ষা করতে পারবে না। আপনাদের বিপদে কেউ পাশে দাঁড়াতে পারবে না। তাই হরিপুরে বাস করতে হলে নৌকায় ভোট দিতে হবে।’

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে মিলন মণ্ডল বলেন, ‘আমি আওয়ামী লীগের নেতা। নৌকা প্রার্থীর পক্ষে বক্তব্য রেখেছি। দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের উদ্দেশে এমন কথা বলেছি।’

চেয়ারম্যান প্রার্থী হাসান আলী বলেন, কোনো হুমকিতে কাজ হবে না। হুমকিতে ভোটাররা ভয় পাবেন না। ভোটের মাঠে আতঙ্ক ছড়াতে অনেকেই হুমকিমূলক বক্তব্য দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক বলেন, বিষয়টি তাঁর জানা নেই। এ ধরনের বক্তব্য দিলে নেতাদের সতর্ক করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন