default-image

একজনের হাঁসকে দেওয়া খাবার খেয়েছে অন্যজনের হাঁস। এ নিয়ে ঝগড়ার জের ধরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায় গত শনিবার রাতে এক যুবক খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় ওই যুবকের চাচাসহ ছয়জনকে আসামি করে আজ রোববার থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ এ পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

নিহত ব্যক্তি হলেন মো. সানাউল্লাহ (৩২)। তিনি দাউদপুর দিঘলিয়ার টেক এলাকার বাসিন্দা। তিনি পেশায় পিকআপ ভ্যানের চালক ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

ভোলাব তদন্তকেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক মাহবুবুর রহমান জানান, সানাউল্লাহ ও তাঁর চাচা আক্তার হোসেন প্রতিবেশী। শনিবার সানাউল্লাহর স্ত্রী তাঁদের হাঁসকে খাবার দেন। তা আক্তার হোসেনদের হাঁস খেয়ে ফেলে। এ নিয়ে সন্ধ্যায় সানাউল্লাহর স্ত্রী ও আক্তার হোসেনের স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। রাতে সানাউল্লাহ ও আক্তার হোসেন বাড়ি এলে তা হাতাহাতিতে রূপ নেয়। একপর্যায়ে আক্তার প্রথমে বাঁশ ও পরে টেঁটা দিয়ে সানাউল্লাহকে আঘাত করেন। এতে আহত হলে সানাউল্লাহকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য চেষ্টা করেও আক্তার হোসেন ও তাঁর পরিবারের কারও সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

জানতে চাইলে আজ রাত আটটার দিকে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান বলেন, এ ঘটনায় আক্তারসহ ছয়জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। পলাতক থাকায় কাউকে ধরা যায়নি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0